default-image

ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা চলতি মাসের শেষ দিকে তাঁর ভারত সফর বাতিল করে দিচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনো হয়নি।


তবে সুগার ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাত দিয়ে জাপানের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ভারতের পাশাপাশি জাপানেও ভাইরাস পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে থাকায় এ মুহূর্তে বিদেশ সফরের পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রী স্থগিত রাখতে চাইছেন। জাপানে চলতি মাসের শেষ দিক থেকে শুরু হতে যাওয়া ছুটির সময়ে ভারতের পাশাপাশি ফিলিপাইন সফরের পরিকল্পনা সুগা করেছিলেন।


গত সপ্তাহে ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে শীর্ষ বৈঠক করার পর ক্রমে আরও বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠা চীনকে সামাল দেওয়ার জুতসই উপায় জাপান খুঁজে দেখছে। সেই লক্ষ্যে ভারত ও অস্ট্রেলিয়াকে অন্তর্ভুক্ত করে গড়ে ওঠা চারটি দেশের জোটকে আরও সংহত করে নিতে আগামী সপ্তাহে সুগা ভারত সফরের পরিকল্পনা করেছিলেন। একই উদ্দেশে ফিলিপাইন সফরও সুগা তাঁর এই ভ্রমণ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রেখেছিলেন। দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের সম্প্রসারিত উপস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন ফিলিপাইনকে কাছে টেনে নেওয়া হচ্ছে জাপানের লক্ষ্য। তবে ভাইরাস পরিস্থিতি এ মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পিত এই সফর বাস্তবায়িত হতে দিচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন

জাপানে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ভারতের মতো ততটা উদ্বেগজনক না হলেও ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার দৈনিক হিসাব ইদানীং সমানে বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে পশ্চিম জাপানে আরও বেশি সংক্রামক নতুন ধরনের ভাইরাসের বিস্তার পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে থাকায় জাপান সরকার এখন দেশের প্রধান কয়েকটি অঞ্চলে আবার জরুরি অবস্থা ঘোষণার সম্ভাবনা বিবেচনা করে দেখছে।

এ ছাড়া জাপানে টিকাদান কর্মসূচির মন্থর গতিও নাগরিকদের মধ্যে দেখা দেওয়া উদ্বেগ বাড়িয়ে দিচ্ছে। সরকার এর আগে দেশের সব নাগরিকের জন্য টিকা নিশ্চিত করার ঘোষণা দিলেও টিকার চালান লাভ বিঘ্নিত হওয়ায় গতি হারিয়ে ফেলেছে জাপানের টিকাদান কর্মসূচি। প্রধানমন্ত্রী সুগা অবশ্য এখন বলছেন সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে টিকার চালান জাপান নিশ্চিত করে নেবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের সঙ্গে সম্পর্কিত ক্রম অবনতিশীল এ রকম পরিস্থিতির কারণে সরকার এখন দেশের ভেতরের পরিস্থিতি নিয়ে আরও বেশি মনোযোগী হতে আগ্রহী। চলতি মাসের শরৎকালে নির্ধারিত পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষের নির্বাচন সরকারের এ রকম হিসাবের পেছনে কাজ করছে বলে অনেকের ধারণা। জনসমর্থন হার হ্রাস পেতে থাকা সুগার প্রশাসন এ মুহূর্তে সম্ভাব্য যেকোনো রকম ঝুঁকি এড়িয়ে যেতে অনেক বেশি আগ্রহী।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন