ঝাড়খন্ডের সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি সিল করা হয়েছে

ভারতের ঝাড়খন্ড রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মধুকোড়ার বাড়ি সিল করে দিয়েছে আয়কর ও দুর্নীতি দমন দপ্তর। তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির মাধ্যমে সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলার অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে মধুকোড়া এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।মধু কোড়া এনডিএ সরকারের আমলে বিজেপির অর্জুন মুন্ডার সরকারে দু বার খনিমন্ত্রী ছিলেন। ইউপিএর আমলে তিনি ছিলেন নির্দল বিধায়ক হিসেবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। প্রথমে বিজেপির টিকিটে তিনি বিধায়ক হন। তারপর বিধায়ক হন নির্দল হিসেবে। মাত্র ছয় বছর মন্ত্রিত্ব করে আড়াই হাজার কোটি রুপির মালিক হয়েছেন। মালিকও হয়েছেন বিদেশের কয়লা খনির।গত রোববার কলকাতা, দিল্লি, মুম্বাই, লক্ষেৗ, নাসিকসহ ভারতের নয়টি শহরে মধুকোড়ার বাড়ি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তল্লাশি চালিয়ে আয়কর দপ্তর প্রচুর বেআইনি সম্পদের হদিস পেয়েছে। পেয়েছে সুইস ব্যাংকে টাকা জমানোরও তথ্য।গত মঙ্গলবার আয়কর দপ্তরের কর্মকর্তারা তাঁকে জেরা করলে তিনি একপর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাঁকে ভর্তি করা হয় ঝাড়খন্ডের রাজধানী রাঁচির একটি বেসরকারি হাসপাতালে। মধুকোড়ার দুর্নীতির ব্যাপারে তদন্ত চালাচ্ছে আয়কর দপ্তর, এনফোর্সমেন্ট বিভাগ, দুর্নীতি দমন সংস্থা ও ভিজিলেন্স দপ্তর। তদন্তের জন্য রাঁচিতে উপস্থিত হয়েছেন ইন্টারপোলের কর্মকর্তারাও।বুধবার মধুকোড়ার রাঁচির বাড়ি তল্লাশি করে আয়কর ও গোয়েন্দা দপ্তরের কর্মকর্তারা উদ্ধার করেছেন চারটি টাকা গণনার মেশিন, প্রচুর নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, শেয়ার সার্টিফিকেট ইত্যাদি। দুবাই, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় ৬০০ কোটি রুপি পাঠানোর তথ্যপ্রমাণও পেয়েছেন তাঁরা। লাইবেরিয়ায় একটি খনি কেনারও তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। কোড়ার বাড়িতে আরও বেআইনি সম্পদের হদিস মিলতে পারে এই সন্দেহে গোয়েন্দারা বুধবারই মধুকোড়ার রাঁচির বাড়ি সিল করে দিয়েছে।