default-image

প্রচণ্ড তুষারপাত ও তুষারঝড়ে জার্মানির মধ্য ও উত্তরাঞ্চলের রাজ্যগুলোর জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার সন্ধ্যা থেকে তুষারপাতের সঙ্গে তুষারঝড়ও শুরু হয়েছে। আগামীকাল সোমবার দুপুর পর্যন্ত এই তুষারপাত চলবে বলে জার্মানির আবহাওয়াবিদেরা জানিয়েছেন।

এই অঞ্চলগুলোর তাপমাত্রা মাইনাস ৩ থেকে মাইনাস ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছে গত শুক্রবার থেকেই। তীব্র ঠান্ডার পাশাপাশি তুষারঝড়ে অনেকেই আহত হন। তবে এখন পর্যন্ত প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। ইতিমধ্যে এই অঞ্চলগুলোয় সর্বোচ্চ ২৫ থেকে ৪০ সেন্টিমিটার তুষারপাত হয়েছে।

কদিন আগে থেকেই আবহাওয়াবিদেরা এই তুষারঝড়ের পূর্বাভাস দিয়েছিলেন। সে অনুযায়ী রাজ্যগুলোর প্রশাসন আগাম প্রস্তুতির অংশ হিসেবে তাদের বাসিন্দাদের সতর্ক করে দেয়।

বিজ্ঞাপন

তুষারপাতের কারণে এসব এলাকায় যানবাহন চলাচলে বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন রুটে রেলের যাত্রা বাতিল হয়েছে। কয়েক জায়গায় সড়ক দুর্ঘটনাও ঘটেছে। বিভিন্ন রাজ্যের সড়ক পুলিশ তুষারপাতের কারণে বিপজ্জনক রাস্তাগুলো সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। লোয়ার স্যাকসনি, নর্থ রাইন ওয়েস্টফালিয়া ও থুরিংগেন রাজ্যে তুষারপাত ও বৃষ্টির কারণে রাস্তাগুলো আয়নার মতো মসৃণ ও পিচ্ছিল হয়ে পড়েছে। কর্তৃপক্ষ গাড়িচালকদের বিশেষভাবে সতর্ক করে দিয়েছে। বড় পরিবহন চালানো নিষিদ্ধ করা হয়েছে। প্রচণ্ড তুষারপাতে ও তুষারঝড়ের কবলে পড়া রাজ্যগুলোয় বিমানবন্দর বন্ধ রাখা হয়েছে। কয়েক জায়গায় বন্ধ হয়ে পড়েছে নৌচলাচল। বিভিন্ন স্থানে নদী ও লেকের উপরিভাগের পানি জমে বরফ হয়ে গেছে।

জার্মানির আবহাওয়া দপ্তরের মুখপাত্র সিমন ট্রিপলর স্থানীয় সময় আজ রোববার স্থানীয় ডের স্পিগেল পত্রিকাকে জানিয়েছেন, এই তুষারপাত সোমবার রাত পর্যন্ত রেকর্ড পরিমাণ ১ মিটার উচ্চতায় পৌঁছাতে পারে। তিনি জানান, মূলত এই তুষারঝড়কে উত্তর-মেরু ঘূর্ণিঝড় বলে উল্লেখ করা হয়। সাধারণত উত্তর মেরু অঞ্চলে শীতল ও উষ্ণ বায়ু একই বৃত্তে পৌঁছানোর কারণে এই ঘূর্ণিচাপ তৈরি হয়েছে।
জার্মানির আবহাওয়া দপ্তরের আরেক মুখপাত্র টোবিয়াস রাইনারজ বলেন, এই অঞ্চলে এমন তুষারঝড় এর আগে ১৯৭৮ সালে একবার হয়েছিল।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন