বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বরা হয়েছে, দায়িত্ব পাওয়ার পর নিহত প্রেসিডেন্ট মইসি হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি সামনে আনেন অ্যারিয়েল হেনরি। তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সব অপরাধীকে আইনের আওতায় আনা হবে। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমাদের আর কখনো এমন মর্মান্তিক ঘটনা দেখতে হবে না।’

এর আগে সোমবার পদত্যাগের পর ক্লদে জোসেফ বলেন, হেনরির ক্ষমতা গ্রহণের ফলে আগামী সেপ্টেম্বরে হাইতিতে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত করার পথ সুগম হবে।
৭ জুলাই রাতে নিজ বাসভবনে হত্যাকাণ্ডের শিকার হন জোভেনেল মইসি। এর মাত্র দুই দিন আগেই হাইতির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অ্যারিয়েল হেনরিকে মনোনীত করেন তিনি। তবে তাঁর শপথ গ্রহণের আগেই নিহত হন মইসি। তবে হেনরির সঙ্গে রাজনৈতিক বিরোধ ছিল ক্লদে জোসেফের। হেনরিকে স্বীকৃতি দিতে নারাজ ছিলেন ক্লদে দায়িত্ব নেওয়ার ওই সময় হেনরি বলেছিলেন, অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী না, বরং জোসেফ পররাষ্ট্রমন্ত্রী হয়ে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পালন করছেন।

এদিকে হাইতির ঐতিহাসিক শহর ক্যাপ-হাইতিয়েনে ২৩ জুলাই মইসির শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। তাঁর শেষকৃত্যে অংশ নেবেন স্ত্রী মার্টিন মইসিও। মইসি হত্যাকাণ্ডের সময় আহত হন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের মিয়ামির একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে গত শনিবার তিনি দেশে ফেরেন।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন