default-image

মার্কিন বিচার বিভাগ গতকাল মঙ্গলবার বিশিষ্ট আমেরিকান কলাম লেখক ই জিন ক্যারোলের (৭৬) করা একটি মামলায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সুরক্ষার নির্দেশ দেয়। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন ক্যারোল।

বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ক্যারোলের অভিযোগ, নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি নিউইয়র্কের পঞ্চম অ্যাভিনিউয়ের বিলাসবহুল বার্গডরফ গুডম্যান ডিপার্টমেন্ট স্টোরের চেঞ্জিং রুমে তাঁকে যৌন নির্যাতন করা হয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

গত বছরের নভেম্বরে নিউইয়র্কে এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে ‘পুরোপুরি মিথ্যাবাদী’ বলায় মানহানির অভিযোগও এনেছিলেন।

ট্রাম্প এর আগে ক্যারোলের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেন। গত বছরের জুন মাসে এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, ক্যারোলের সঙ্গে তিনি কখনো দেখা করেননি। ক্যারোল কখনো তাঁর পছন্দের কেউ ছিলেন না।

ট্রাম্পের পক্ষ থেকেই তাঁর ব্যক্তিগত আইনজীবী মার্ক কাসোভিজকে ওই মামলা খারিজ করার অনুরোধ করলেও আদালত তা নাকচ করলে মামলাটি ম্যানহাটনের ফেডারেল আদালতে স্থানান্তর করা হয়। আদালত বলেন, সরকারি আইনজীবীরা ট্রাম্পের মামলাটির মুখোমুখি হবেন।

বিজ্ঞাপন

ক্যারোলের আইনজীবী রবার্টা কাপলার বলেন, বিচার বিভাগের মর্মাহত হস্তক্ষেপে মামলায় দেরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আগামী নভেম্বরে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আবার অংশ নিতে যাচ্ছেন। তাঁকে নথি দিতে হবে এবং ডিএনএ নমুনাও দিতে হবে।

ব্যক্তিগত দুর্ব্যবহারের দায়বদ্ধতা এড়াতে মার্কিন সরকারের ক্ষমতা প্রয়োগে ট্রাম্পের প্রচেষ্টা নজিরবিহীন। এটি আরও স্পষ্টভাবে দেখায় যে সত্য সামনে আসতে বাধা দেওয়ার ক্ষেত্রে তিনি কতটা মরিয়া।

ক্যারোল বলেন, ‘নিজের অপকর্ম খোঁজার পথ রুদ্ধ করতে ট্রাম্প সম্ভাব্য সবকিছু করবেন। নির্বাচনের আগে কোনো বিচারককে এ মামলার কাছে আসতে দেবেন না। কিন্তু ট্রাম্প আমার অবমূল্যায়ন করে মার্কিন জনগণকেও হেয় করেছেন।’

মন্তব্য পড়ুন 0