default-image

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের বাসিন্দা আইনজীবী লিওরা ক্রাইজিয়ারের শখ পোস্টকার্ড সংগ্রহ করা। পুরোনো পোস্টকার্ড তাঁকে প্রবল আকর্ষণ করে। সেই আকর্ষণই একদিন তাঁর কাছে এমন এক পোস্টকার্ড হাজির করে, যা লেখা হয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়। তাঁর দীর্ঘ প্রচেষ্টায় সেই পোস্টকার্ড ফিরেছে প্রেরকের ঠিকানায়।


মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, পোস্টকার্ডটি লিখেছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নেওয়া এক ব্রিটিশ সেনা। নাম এ টি মেনার্ড। সিগারেট পাঠানোর জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে পোস্টকার্ডটি তিনি ১৯৪২ সালে পাঠিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ব্রুকলিনের ক্লিনটন অ্যাভিনিউর বাসিন্দা জনৈক ডব্লিউএইচ কাল্ডওয়েলকে।


পোস্টকার্ডটি এক দোকানে ২০০৩ সালে পেয়ে যান আইনজীবী লিওরা ক্রাইজিয়ার। এরপর তাঁর আগ্রহ জাগে, তিনি সশরীর পোস্টকার্ডটির প্রেরক বা তাঁর পরিবারের সদস্যদের তা ফেরত দেবেন। কিন্তু যে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর মেনার্ডকে তিনি খুঁজছেন, তাঁকে পাবেন কী করে!

বিজ্ঞাপন

একপর্যায়ে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীকে চিঠি লিখলেন লিওরা। কিন্তু সেনাবাহিনী তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করে। তাদের ভাষ্য ছিল, লিওরা যা জানতে চান, তা অত্যন্ত গোপনীয় তথ্য। বাধ্য হয়ে লিওরা অনুরোধ জানান, শুধু মেনার্ডের পুরো নামটা যেন তারা জানায়। বেশ কয়েকবার চিঠি চালাচালির পর ব্রিটিশ সেনাবাহিনী জানায়, ওই সেনাসদস্যের নাম আর্থার টমাস মেনার্ড।


এবার লিওরা যুক্তরাজ্যের জনমিতির তথ্য ঘেঁটে বেশ কয়েকজন আর্থার টমাস মেনার্ডকে পেয়ে যান। সবার ঠিকানায় তিনি চিঠি দেন। বেশ কয়েকজনের সন্তান জবাবও পাঠায়। সব মিলিয়ে ৫০-৬০টি চিঠি চালাচালি হয়। কিন্তু কোনো মেনার্ডই প্রকৃত বলে প্রমাণিত হয় না। হতাশার দ্বারপ্রান্তে থাকা অবস্থায় হঠাৎ একদিন ই–মেইল করলেন যুক্তরাজ্যের নরফকের প্রত্যন্ত স্টিবার্ডের বাসিন্দা মাইকেল ও ভ্যালেরি বক্সাল। তাঁরা তাঁদের প্রতিবেশী টম মেনার্ড ও তাঁর বোন উইনি মেনার্ড ডেভিসের পক্ষ থেকে ই–মেইলটি করেছিলেন। ওই ই–মেইলে জানানো হয়, ৮০ বছরের বেশি বয়সী টম ও উইনির এক ভাই ছিলেন, যাঁর নাম আর্থার টমাস মেনার্ড। তিনি আর জীবিত নেই। ই–মেইলে পোস্টকার্ডটির একটি ছবি চাওয়া হয়, যাতে টম ও উইনি তাঁদের ভাইয়ের হাতের লেখার সঙ্গে পোস্টকার্ডের লেখা মিলিয়ে দেখতে পারেন।


ই–মেইলের জবাবে লিওরা পোস্টকার্ডের ছবি পাঠান। ফিরতি ই–মেইলে টম ও উইনির ভাই আর্থার টমাস মেনার্ডের হাতের লেখার ছবি পাঠান মাইকেল ও ভ্যালেরি বক্সাল। লিওরার আর কোনো সন্দেহ থাকে না, তিনি পোস্টকার্ডের প্রেরকের খোঁজ পেয়ে গেছেন। কিশোরী মেয়েকে নিয়ে এবার লিওরা রওনা হয়ে যান যুক্তরাজ্যের পথে। মেনার্ডের ভাইবোনের কাছে পৌঁছে দেন পোস্টকার্ডটি।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন