default-image

মুফাসা ছিল বদরাগী কিন্তু বার্ধক্য আসার পর যেন শরীরটা দ্রুতই ভেঙে পড়ছিল। অবস্থা এমন দাঁড়াল যে তাকে বাঁচিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে দাঁড়াল। এদিকে তার কোনো বংশধরও ছিল না। এর জন্য তার বদরাগকেই দায়ী করা হয়। মুফাসার জীবনসায়াহ্নে বিজ্ঞানীরা তাই একটি কৌশল নিলেন তার বংশ টিকিয়ে রাখতে। তার থেকে শুক্রাণু সংগ্রহ করা হলো। কিন্তু মুফাসা আর জেগে উঠল না। তবে মৃত বাবার সেই শুক্রাণু থেকে জন্ম নিল সিমবা।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, সিমবা একটি সিংহশাবক। সিঙ্গাপুরের একটি চিড়িয়াখানায় কৃত্রিম উপায়ে গত অক্টোবরে জন্ম হয়েছে তার। তবে সম্প্রতি বিষয়টি নিশ্চিত করেছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। সিমবার বাবার নামকরণ করা হয়েছিল হলিউড চলচ্চিত্র প্রযোজনা সংস্থা ওয়াল্ট ডিজনি পিকচার্সের ছবি ‘দ্য লায়ন কিং’-এর পশুরাজ মুফাসার নামে। আর সিমবার নামকরণ করা হয়েছে ওই চলচ্চিত্রে মুফাসার সন্তানের নামে। সে হিসেবে সিঙ্গাপুরের চিড়িয়াখানার সিমবাকে বলা হচ্ছে রাজকুমার সিমবা।

বিজ্ঞাপন

মুফাসা ছিল আফ্রিকান লায়ন প্রজাতির সিংহ। এই প্রজাতিকে বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় রেখেছে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর দ্য কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন)। কাজেই মুফাসার বংশ টিকিয়ে রাখা জরুরি হয়ে পড়েছিল। এদিকে মুফাসার বদরাগের কারণে স্বাভাবিক প্রজননও সম্ভব হয়নি। এ কারণেই চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বিকল্প পথে হেঁটেছে। কৃত্রিম উপায়ে প্রজননের জন্য ভঙ্গুর স্বাস্থ্যের মুফাসাকে প্রথমে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে দেওয়া হয়েছে। তারপর তার থেকে সংগ্রহ করা হয় শুক্রাণু। এরপর তা স্থাপন করা হয় এক সিংহীর গর্ভে।

সিমবার বয়স এখন তিন মাস। তবে এই তিন মাসে তাকে নিয়েও সমস্যায় পড়তে হয়েছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষকে। তার মা কায়লার প্রদাহজনিত সমস্যার কারণে মাতৃদুগ্ধ পায়নি সে। তাকে বোতলে করে দুধ খাওয়াতে হয়েছে।

সিঙ্গাপুর জুয়ের বন্য প্রাণী স্বাস্থ্যসেবা ও গবেষণা কেন্দ্র জানিয়েছে, সিমবার শারীরিক বৃদ্ধি স্বাভাবিক রয়েছে। তার এখন সময় কাটে মায়ের সঙ্গে খেলা করে। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষও তাকে খেলার উপকরণ সরবরাহ করে। তার সবচেয়ে প্রিয় খেলার উপকরণ হলো বেত দিয়ে তৈরি বল। সেটা নিয়েই ছোটাছুটি করে দিন কাটে তার। দুধের পাশাপাশি প্রতিদিন কিছুটা মাংসও খেতে শুরু করেছে সিমবা।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন