বিজ্ঞাপন

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার ঘটনায় দেশে–বিদেশে তীব্র সমালোচনা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এ প্রতিবাদ এখনো চলছে।

আজ ৩০ প্রবাসী বাংলাদেশির দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, বাংলাদেশের ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ পূর্তির এই সময় দেশের সমাজ ও রাজনীতিতে কতিপয় অসাধু মানুষ ও দুর্নীতিবাজদের কারণে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার মূল চেতনা ভুলণ্ঠিত হচ্ছে। সচিবালয়ে সাংবাদিকের কর্তব্য পালন করতে গিয়ে প্রথম আলোর বিশিষ্ট সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা হেনস্তার পর থানায় সোপর্দ করা হয়। তারপর তাঁর বিরদ্ধে মামলা দায়ের করে সারা রাত থানায় রেখে তাঁকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। তাঁর রিমান্ডের আবেদন নাকচ হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এই ঘটনা প্রশাসনের ভেতরে থাকা কিছু দুর্নীতিবাজ আমলা যে কতটা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে, তারই বহিঃপ্রকাশ।

বিবৃতিদাতারা বলেন, ‘সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে, তা ন্যক্কারজনক। এ ঘটনায় আমরা সবাই উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি এই আক্রোশ থামাতে হবে। সীমাহীন চুরি–বাটপারি ঠেকাতে, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে জনগণের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। আমরা অবিলম্বে নির্ভীক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির পাশাপাশি পুরো ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানাচ্ছি।’

বিবৃতিদাতাদের মধ্যে আছেন জার্মানি থেকে আবদুল্লাহ আল ফারুক, সত্য ভৌমিক, মাহজাবিন আহমেদ, হাসিব মাহমুদ, শাহীন দিল রিয়াজ, সরাফ আহমেদ, হাবিব বাবুল, মোনাজ হক, শরীফ ভুইয়া। বেলজিয়াম থেকে জিয়া উদ্দিন আহমেদ, সোহেল পারভেজ। ডেনমার্ক থেকে রুহুল কাজল। সুইডেন থেকে দেলোয়ার হোসেন, সালেহ মুস্তফা জামিল, আকতার এম জামান। ফিনল্যান্ড থেকে মজিবুর দফতরী। হল্যান্ড থেকে বিকাশ চৌধুরী বড়ুয়া, ডেভিড রহমান, মুরাদ খান। অস্ট্রিয়া থেকে শহীদ হোসেন। সুইজারল্যান্ড থেকে মারুফ আনোয়ার, যুক্তরাজ্য থেকে জুয়েল রাজ, আনসার আহমেদ উল্লাহ, এ টি এম মুনির, আ স ম মাসুম। ফ্রান্স থেকে মারজান প্রধান, কাজী ওসমান, শরীফ ভুইয়া, এম এ হাশেম। ইটালি থেকে নাজির মোহাম্মদ খান।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন