শ্রীলঙ্কার সংবাদমাধ্যম দ্য আইল্যান্ড–এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জাতিসংঘ, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ও বিশ্বব্যাংক বরাবর পাঠানো হয়েছে একটি আবেদন। সেভ শ্রীলঙ্কা নামের ওই অনলাইন আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাজে অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, যা শ্রীলঙ্কাকে দুর্দশার দিকে ঠেলে দিয়েছে। এ ছাড়া খারাপ অর্থনৈতিক পরিকল্পনা, রাজনীতিবিদ ও সরকারি কর্মকর্তাদের ব্যাপক দুর্নীতির কথাও উল্লেখ রয়েছে এ আবেদনে।

ওই অনলাইন আবেদনে শ্রীলঙ্কার দুরবস্থার কথা উল্লেখ করে বলা হয়, ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কা ঋণ শোধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। এ কারণে দেশটিকে দেউলিয়া ঘোষণা করেছে। এই সংকট মোকাবিলায় দেশটির সরকার বর্তমানে বৈদেশিক ঋণ পুনর্গঠন ও আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের কাছ থেকে অতিরিক্ত ঋণ পাওয়ার আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

ওই পিটিশনে আরও বলা হয়েছে, অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনা আর দুর্নীতি যদি এভাবে চলতেই থাকে, তাহলে নতুন করে বৈদেশিক বিনিয়োগ দেশটির অর্থনৈতিক অগ্রগতিকে স্থিতিশীল করতে অবদান রাখতে পারবে না।

আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ ছাড়াও অনলাইন আবেদনে শ্রীলঙ্কা সরকারের কাছে সংকট কাটাতে আবেদনে স্বাক্ষরকারীরা অন্তর্বর্তীকালীন প্রশাসকদের দায়িত্ব দিয়ে বর্তমান প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে ও তাঁর বড় ভাই প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের পদত্যাগের দাবি জানানো হয়েছে।

অন্তর্বর্তীকালীন প্রশাসকদের আশু করণীয় সম্পর্কেও বেশ কয়েকটি সুপারিশ করা হয় আবেদনে। এর মধ্যে অন্যতম শ্রীলঙ্কার সংবিধানের ২০তম সংশোধনী বাতিল করা।
এদিকে বর্তমান অর্থনৈতিক সংকট আরও দুই বছর স্থায়ী হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন শ্রীলঙ্কার অর্থমন্ত্রী আলি সাবরি। গত বুধবার পার্লামেন্টে আলি সাবরি বলেন, ‘মানুষের সত্যিটা জানা উচিত। আমি জানি না মানুষ পরিস্থিতির গভীরতা সম্পর্কে বুঝতে পারছে কি না।’

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন