সাধারণত সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তাব্যবস্থা ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে বিমান ভ্রমণ তুলনামূলকভাবে সবচেয়ে নিরাপদ বলেই দাবি করেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। তবে দুর্ঘটনা ঘটতেই পারে এবং ঘটেও। বিশ্বের ইতিহাসে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে ভয়াবহ ১০টি দুর্ঘটনার তথ্য নিচে তুলে ধরা হলো।
টেনেরিফ দুর্ঘটনা: ১৯৭৭ সালের ২৭ মার্চ। ঘটনাস্থল স্পেনের টেনেরিফ দ্বীপপুঞ্জের টেনেরিফ বিমানবন্দর। রানওয়েতে দুটি বোয়িং উড়োজাহাজের সংঘর্ষ হলে ৫৮৩ যাত্রীর প্রাণহানি ঘটে। তবে প্রাণে বেঁচে যান ৬১ জন।
জাপান এয়ারলাইনস ফ্লাইট ১২৩: ১৯৮৫ সালের ১২ আগস্ট। জাপানের ইউয়েনো এলাকায় যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে গিরিখাতের ভেতরে উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়। এতে মারা যান ৫২০ জন। জীবিত রক্ষা পান মাত্র চারজন।
হরিয়ানায় মধ্য-আকাশে সংঘর্ষ: ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের চরকি দাদড়ি এলাকা। সৌদি এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজের সঙ্গে কাজাখস্তান এয়ারলাইনসের আরেকটি উড়োজাহাজের মধ্য আকাশে সংঘর্ষ হয়। এতে মারা যান ৩৪৯ জন।
টার্কিশ এয়ারলাইনস ফ্লাইট ৯৮১: ১৯৭৪ সালের ৩ মার্চের ঘটনা। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের বাইরের একটি এলাকায় উড়োজাহাজের পেছনের কার্গো এলাকার দরজা ভেঙে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত্যু হয় ৩৪৬ আরোহীর সবার।
এয়ার ইন্ডিয়া ট্র্যাজেডি: ১৯৮৫ সালের ২৩ জুনের ঘটনা। আটলান্টিক মহাসাগরের আয়ারল্যান্ড উপকূলে সম্ভাব্য শিখ জঙ্গিদের বোমায় উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়। মারা যান ৩২৯ আরোহীর সবাই। তাঁদের মধ্যে ২৬৮ জনই ভারতীয় বংশোদ্ভূত কানাডীয় নাগরিক।
সৌদিয়া ফ্লাইট ১০৬৩: ১৯৮০ সালের ১৯ আগস্টের ঘটনা। সৌদি আরবের রিয়াদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের পর উড়োজাহাজটিতে আগুন লেগে যায়। মারা যান ৩০১ আরোহীর সবাই।
ইরান এয়ার বিপর্যয়: ১৯৮৮ সালের ৩ জুলাইয়ের ঘটনা। পারস্য উপসাগরের আকাশে ইরান এয়ারের একটি যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ গুলি করে ভূপাতিত করে যুক্তরাষ্ট্র। এতে মারা যান ২৯০ আরোহীর সবাই। যুক্তরাষ্ট্র দাবি করেছিল, ভুল করে ওই গুলি করা হয়।
ইরানের ইলিউশিন বিমান: ২০০৩ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারির ঘটনা। ঘটনাস্থল ইরানের কেরমান এলাকা। খারাপ আবহাওয়ার কারণে বিধ্বস্ত হয় প্রভাবশালী বিপ্লবী গার্ড সদস্যদের বহনকারী উড়োজাহাজটি। মৃত্যু হয় ২৭৫ আরোহীরই।
আমেরিকান এয়ারলাইনস ফ্লাইট ১৯১: ১৯৭৯ সালের ২৫ মের ঘটনা। ঘটনাস্থল শিকাগো। বাঁ পাখা থেকে একটি ইঞ্জিন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলে বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পর বিধ্বস্ত হয় বিমানটি। মারা যান ২৭৩ আরোহীর সবাই।
কোরিয়ান এয়ারলাইনস ফ্লাইট ০০৭: ১৯৮৩ সালের ১ সেপ্টেম্বরের ঘটনা। ঘটনাস্থল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের মনোরন দ্বীপ। সোভিয়েত বাহিনী গুলি করে ভূপাতিত করে যাত্রীবাহী উড়োজাহাজটি। মারা যান ২৬৯ আরোহীর সবাই।
সূত্র: আল-জাজিরা

বিজ্ঞাপন
বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন