default-image

বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের ক্ষেত্রে আলোচিত কাফালা ব্যবস্থায় পরিবর্তন এনেছে সৌদি আরব। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এখন থেকে দেশটিতে অবস্থানরত বিদেশি শ্রমিকেরা তাঁদের নিয়োগকর্তার অনুমতি ছাড়াই চাকরি পরিবর্তন করতে পারবেন। রোববার থেকে সংস্কারকৃত শ্রম আইন কার্যকর হওয়ায় দেশটিতে অবস্থান করা বিদেশি শ্রমিকেরা এ সুযোগ পাবেন।

কোনো এক ব্যক্তির অধীনে বিদেশি শ্রমিকদের নিয়োগ দেওয়াই হলো কাফালা পদ্ধতি।

যেখানে একজন কফিল বা নিয়োগকর্তা কোনো বিদেশি কর্মীকে স্পনসর করলে সেই কর্মী সৌদি আরব যেতে পারেন। দেশটিতে যাওয়ার পর ওই নিয়োগকর্তার অধীনে কাজ করতে হয় তাঁকে। এ ক্ষেত্রে ওই কর্মীর কাজ পরিবর্তনসহ সার্বিক সব বিষয় নির্ভর করে নিয়োগকর্তার ইচ্ছার ওপর।

বিজ্ঞাপন

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল–জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের নভেম্বরে সৌদি আরবের মানবসম্পদ ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় শ্রম আইনে সংস্কার আনবে বলে জানায়। সেই সময় বলা হয়, কাফালা পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হবে।
আইন সংস্কারের ফলে এখন থেকে সৌদি আরবে অবস্থানরত বিদেশি শ্রমিকেরা তাঁদের নিয়োগকর্তার অনুমতি ছাড়াই চাকরি পরিবর্তন করতে পারবেন। এ ছাড়া নিয়োগদাতার অনুমতি না নিয়ে সৌদি আরব ছেড়ে যাওয়ার স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে বিদেশি কর্মীদের।

মানবাধিকার সংগঠনগুলোর মতে, নতুন শ্রম আইনে কাফালা ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার কারণে সৌদি আরবে অবকাঠামো নির্মাণ খাত ও গৃহকর্মে নিযুক্ত বিদেশি শ্রমিকেরা সরাসরি উপকৃত হবেন। কেননা এসব খাতের শ্রমিকদের কাজে বাধ্য করা, মজুরি কম দেওয়া, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা, নির্ধারিত সময়ের অতিরিক্ত কাজে বাধ্য করার মতো গুরুতর অভিযোগ মালিকপক্ষের বিরুদ্ধে রয়েছে। আইন সংস্কারের ফলে শ্রমিকেরা চাকরি বদলানোর সুযোগ পাওয়ায় এসব ঘটনা কমে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন