default-image

ব্রাজিলের আমাজন অরণ্যের স্থানে বিলুপ্ত প্রাচীন সভ্যতার চিহ্নের খোঁজে একদল বিজ্ঞানী এবার দূরনিয়ন্ত্রিত উড়ন্তযান বা ড্রোন ব্যবহার করতে যাচ্ছেন। লেজারভিত্তিক যন্ত্রপাতি দিয়ে ওই ড্রোন হাজারো বছর আগে মাটির তৈরি সম্ভাব্য প্রতিরক্ষা স্থাপনা খুঁজবে। খবর বিবিসির।
যুক্তরাজ্যের একদল বিজ্ঞানী ওই অনুসন্ধান প্রকল্পে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আমাজন অঞ্চলে প্রাচীন যুগে বসবাসকারী জনগোষ্ঠী কত বড় ছিল এবং প্রকৃতিতে তারা কী ধরনের পরিবর্তন এনেছিল—এসব জানার চেষ্টা করছেন ওই বিজ্ঞানীরা। এসব তথ্য এখনকার যুগে বনাঞ্চল টিকিয়ে রাখার উপযোগী নীতি প্রণয়নে সহায়ক হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের সান হোসে শহরে আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অব সায়েন্সের বার্ষিক সম্মেলনে ওই উদ্যোগের ব্যাপারে জানানো হয়। এ প্রকল্পের জন্য গবেষকেরা ইউরোপীয় গবেষণা পরিষদের ১৯ লাখ মার্কিন ডলারের অনুদান পেয়েছেন।
৫০০ বছরের বেশি আগে ১৪৯০-এর দশকে ইউরোপীয়রা আমাজন এলাকায় পৌঁছানোর আগের তিন হাজার বছর প্রাক-কলাম্বীয় যুগ নামে পরিচিত। সে অঞ্চলের তখনকার অধিবাসীদের বৈশিষ্ট্য এবং কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানার উদ্দেশ্যেই বিজ্ঞানীরা ড্রোনের সাহায্যে অনুসন্ধানের পরিকল্পনা করেছেন। আন্তর্জাতিক গবেষক দল সেখানকার মাটিতে আরও জিওগ্লিফের (বড় আকারের জ্যামিতিক
নকশা করা জায়গা) খোঁজ করবেন। জঙ্গল সাফ করতে গিয়ে এ রকম প্রায় ৪৫০টি জিওগ্লিফ পাওয়া গেছে। সম্ভবত এগুলো ছিল কোনো বিশেষ অনুষ্ঠানস্থল।

বিজ্ঞাপন
বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন