বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এবারের আয়োজনে ১০ জন নারী অংশ নিয়েছিলেন। আয়োজকেরা জানিয়েছেন, প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী নারীদের বয়স ৭৯ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে। সবাই নাৎসি বাহিনীর ধ্বংসযজ্ঞের শিকার। কারও জন্ম রোমানিয়ায়। কারও সাবেক যুগোস্লাভিয়ায়। কারও বর্তমান ক্রোয়েশিয়ায়। তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে তাঁরা সবাই ইসরায়েলে থিতু হয়েছেন।

জেরুজালেমের একটি জাদুঘরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সেজেগুজে ও রঙিন গাউন পরে মঞ্চ মাতিয়েছেন তাঁরা।

প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন ৮৭ বছরের কুকা পালমন। নাৎসি গণহত্যার মুখে তিনি রোমানিয়া থেকে ইসরায়েলে আশ্রয় নিয়েছিলেন। ব্যক্তিজীবনে দুই সন্তান, চার নাতি-নাতনি এবং দুই প্রপৌত্র-প্রপৌত্রী রয়েছে তাঁর। কুকা পালমন বলেন, ‘এই বয়সে এসে এমন একটি প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।’

এবারের আয়োজনে রিভকা নামের একজন প্রতিযোগীর নাতনি ডানা পাপো বলেন, এমন আয়োজনের মধ্য দিয়ে সবাই দেখতে পেয়েছে তাঁরা (প্রতিযোগীরা) এখনো কত সুন্দর। অথচ তরুণ বয়সে ভয়াবহ পরিস্থিতির ভেতর দিয়ে গেছেন তাঁরা। সেই ভয়াল স্মৃতি তাঁরা এখনো বয়ে নিয়ে চলেছেন। এমন আয়োজনের মধ্য দিয়ে তাঁদের সম্মান জানানো হয়েছে।

বিশ্ব থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন