default-image

আফ্রিকার দেশগুলোর জন্য সীমান্ত খুলে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মতো করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির দেশের জন্য বিধিনিষেধ বজায় থাকছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে এই নিয়ম কার্যকর হয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা গত মার্চ থেকে বিমানবন্দরসহ দেশটির সকল সীমান্ত বন্ধ করে দেয়। এই ঘোষণার পর ইতিমধ্যে কয়েকটি স্থল সীমান্তের পাশাপাশি তিনটি প্রধান বিমানবন্দর খোলা হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী নালেদি প্যান্দোর গতকাল বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন, দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে ঊর্ধ্ব সংক্রমণের দেশের নাগরিকদের জন্য ভ্রমণের সুযোগ থাকছে না। তবে সেসব দেশের বিনিয়োগকারী, কূটনীতিক, ব্যবসায়ী ও গুরুত্বপূর্ণ ভিসাধারী ব্যক্তিদের জন্য এ শর্ত প্রযোজ্য হবে না। ভ্রমণে আসা ব্যক্তিদের করোনা নেগেটিভের প্রয়োজনীয় কাগজ দেখাতে হবে।

বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ আফ্রিকা কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, ভ্রমণ অবস্থায় করোনা শনাক্ত হলে বা লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসার সকল ব্যয় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকেই বহন করতে হবে।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির তথ্য মতে, করোনাভাইরাস শনাক্তের দিক থেকে বিশ্বে দশম অবস্থানে রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দেশটিতে এ পর্যন্ত পৌনে সাত লাখ মানুষের শরীরে এ ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৭ হাজারের মতো মানুষ মারা গেছেন।

মন্তব্য করুন