default-image

আলজেরিয়ায় বিশ্বের অন্যতম বড় মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। দেশটির প্রেসিডেন্ট আব্দেলআজিজ বুতাফিকা এই মসজিদ নির্মাণের কথা জানিয়েছেন।


দ্য দাজমা আল দাজাজায়ের নামে ওই মসজিদ চত্বরে ১০ লাখ বইয়ের একটি গ্রন্থাগার থাকবে। কোরআন শিক্ষার একটি স্কুল থাকবে। ইসলামি সংস্কৃতি ও ইতিহাস-বিষয়ক একটি জাদুঘর থাকবে।


মসজিদে ৮৭৪ ফুট উঁচু মিনার তৈরি করা হবে। আলজেরীয় সরকারের দাবি, এটি হবে বিশ্বের সর্বোচ্চ মিনার। একই সঙ্গে এখানে ২০ হাজার বর্গমিটারের একটি নামাজ আদায়ের ঘর থাকবে। এখানে একসঙ্গে ১ লাখ ২০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন।


মসজিদটি ভবিষ্যতে অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র হতে পারে। উত্তর আফ্রিকার এই দেশটিতে ১৯৯০ সালে সরকার ও ইসলামপন্থী জঙ্গিদের মধ্যে গৃহযুদ্ধে দুই লাখ মানুষ নিহত হয়। এরপর থেকে প্রায় দুই দশক ধরে আলজেরিয়ার বিভিন্ন এলাকায় আল-কায়েদা ও অন্য জঙ্গি দলগুলো সক্রিয় রয়েছে।


নতুন এই মসজিদটির নির্মাণকাজ ২০১৭ সালে শেষ হবে। মসজিদটির নির্মাণকাজের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে সংশ্লিষ্ট আহমেদ মাদানি বলেন, এটি বিশ্বের অন্যান্য দেশের মুসলমানদের আকৃষ্ট করবে।

default-image

মাদানি বলেন, ১৯৬২ সালে মসজিদটি নির্মাণকাজের চিন্তা তাঁর মাথায় আসে। ওই বছরই আলজেরিয়া ফ্রান্স থেকে আলাদা হয়েছিল। মাদানি বলেন, মুসলিম সাহিত্য ও সংস্কৃতিমনস্ক বুতাফিকা ক্ষমতাসীন থাকায় মসজিদ নির্মাণকাজ দ্রুত এগিয়ে নেওয়া সহজ হয়েছে।


মাদানি বলেন, নতুন এই মসজিদ মুসলিম সম্প্রদায়ের বিশ্বাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির মেলবন্ধন হয়ে উঠবে। মসজিদটিতে আধুনিক একটি গ্রন্থাগার থাকবে। কোরআন শিক্ষার স্কুল থাকবে। ৩০০ শিক্ষার্থীর জন্য মসজিদের দরজা সব সময় উন্মুক্ত থাকবে।


নতুন মসজিদ নির্মাণে ১৪০ কোটি ডলার ব্যয় হবে।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন