default-image

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেছেন, দেশটির তাইগ্রে অঞ্চলের সামরিক লক্ষ্যবস্তুর ওপর বিমান হামলা চালানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার সাবেক ক্ষমতাসীন জোটের শরিকদের বিরুদ্ধে এ হামলা হয়েছে। এতে দেশটিকে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিবিসি জানিয়েছে, বিমান হামলায় লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তাইগ্রের সরকারি দল বলছে, বৃহস্পতিবার বিমান হামলা চালানো হয়। তবে জ্যেষ্ঠ একজন কর্মকর্তা গতকাল শুক্রবার বলেছেন, এতে তেমন কিছু ঘটেনি।

বিজ্ঞাপন

ইথিওপিয়ার ফেডারেল সরকার এবং উত্তরাঞ্চলের শহর তাইগ্রের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে উত্তেজনা চলছে। চলতি সপ্তাহে সেখানে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে লড়াই বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইথিওপিয়ান ব্রডকাস্টিং করপোরেশনকে আবি আহমেদ বলেছেন, বৃহস্পতি ও শুক্রবার বিমান হামলা চালানো হয়েছে। আরও হামলা চালানো হবে। এ হামলায় ক্ষেপণাস্ত্র, রাডার যন্ত্রপাতি ও রকেট নষ্ট করা হয়েছে। এসব রকেটের পাল্লা ছিল ৩০০ কিলোমিটার পর্যন্ত।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বলেছেন, সাধারণ লোকজনকে লক্ষ্য করে কোনো হামলা চালানো হয়নি। বিপজ্জনক সন্ত্রাসী গ্রুপের সংগ্রহশালায় আঘাত হানা হয়েছে। তাইগ্রেতে যে সামরিক অভিযান চালানো হচ্ছে, তা পরিষ্কার, সীমিত ও অর্জনযোগ্য লক্ষ্যবস্তু হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।

তাইগ্রের নেতা ডেব্রেটসিয়ন জেরবাইমাইকেল এর আগে আবির প্রশাসনের বিরুদ্ধে ওই রাজ্যে আক্রমণ করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ এক বিবৃতিতে বলেছেন, আঞ্চলিক রাজধানী মেকলে ও তার চারপাশে বিমান হামলায় মূলত তাইগ্রের পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) রকেট লঞ্চার এবং অন্যান্য অস্ত্র নির্মূল করা হয়েছে। আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠায় টিপিএলএফকে নিরস্ত্রীকরণের প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0