default-image

উগান্ডায় সাংবাদিকদের মারধর করার দায়ে দেশটির সাত সেনাসদস্যের সাজা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দেশটির সেনাবাহিনী এই সাজা দেয়। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

গত বুধবার উগান্ডার রাজধানী কাম্পালায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয়ের বাইরে একটি কর্মসূচির খবর সংগ্রহের সময় সাংবাদিকদের ওপর হামলা হয়। এই হামলায় জড়িত থাকায় সাত সেনাসদস্যের সাজা হলো।

দেশটিতে সাংবাদিকদের ওপর হামলা-নির্যাতন-নিপীড়নের ঘটনায় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সাজার বিষয়টি বিরল। দেশটির বিরোধী নেতা ববি ওয়াইনের সমর্থকদের বিরুদ্ধে দমন-পীড়ন চালানোর প্রেক্ষাপটে সম্প্রতি উগান্ডায় সাংবাদিকদের ওপর হামলা বেড়ে গেছে।

গত বুধবার পপতারকা ও আইনপ্রণেতা ববির কর্মসূচি কাভার করার সময় সাংবাদিকেরা নিরাপত্তা বাহিনীর মারধরের শিকার হন। এদিন কাম্পালায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয়ে একটি আবেদন জমা দেন ববি। ওই আবেদনে তিনি দেশটিতে নির্যাতন, অপহরণ, অবৈধ আটকসহ মানবাধিকার লঙ্ঘনের নানা অভিযোগ তদন্ত করার জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানান।

বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয়ের বাইরে ববির কর্মসূচি কভারের সময় সাংবাদিকের ওপর চড়াও হন কতিপয় সেনাসদস্য। তাঁরা সাংবাদিকদের মারধর করেন। এতে বেশ কিছু সাংবাদিক আহত হন।

এনটিভি উগান্ডায় প্রচারিত ফুটেজে দেখা যায়, সাংবাদিকদের বেদম লাঠিপেটা করছেন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। হামলার মুখে সাংবাদিকেরা দিগ্‌বিদিক ছুটছেন। হামলায় আহত সাংবাদিকদের মধ্যে অন্তত চারজনের অবস্থা গুরুতর বলে জানা যায়। তাঁদের মধ্যে কারও কারও মাথায়ও আঘাত রয়েছে।

সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় ক্ষমা চান দেশটির সেনাপ্রধান জেনারেল ডেভিড মুহুজি। দায়ীদের শাস্তি নিশ্চিত করার অঙ্গীকার করেন তিনি।

এক বিবৃতিতে উগান্ডার সেনাপ্রধান বলেন, এ ধরনের কাজ অত্যন্ত দুঃখজনক। সেনাবাহিনী একটি পেশাদার প্রতিষ্ঠান। তারা এই ধরনের কাজ বরদাশত করে না।

উগান্ডা পিপলস ডিফেন্স ফোর্সেস গতকাল এক বিবৃতিতে জানায়, সেনাবাহিনীর একটি ডিসিপ্লিনারি কমিটি অভিযুক্ত সাত সেনাসদস্যের বিচার করে। বিচারে সাত সেনাসদস্যকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। দোষী সেনাসদস্যদের বিভিন্ন ধরন ও মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে। সর্বোচ্চ সাজা ৯০ দিনের কারাদণ্ড। সাজা পাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ক্যাপ্টেন পদমর্যাদার সেনাসদস্যও আছেন।

গত মাসে উগান্ডায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয়। দেশটিতে ৩৫ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট ইয়োয়েরি মুসেভেনি নির্বাচনে জয়ী হন। এই নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম-কারচুপির অভিযোগ করেন ববি। তিনি এই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেন।

নির্বাচনের ফল আদালতে চ্যালেঞ্জ করেছেন ববি। মুসেভেনিকে চ্যালেঞ্জ জানানোয় তাঁর ক্রোধের শিকার হচ্ছেন ববি ও তাঁর সমর্থকেরা।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন