default-image

দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত করোনার নতুন ধরনের বিরুদ্ধে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা সুরক্ষা দিতে পারে। ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার সর্বশেষ পরীক্ষা থেকে এমন তথ্যই পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার আল-জাজিরা অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

ফাইজার-বায়োএনটেক বলছে, দক্ষিণ আফ্রিকায় ছোট পরিসরে টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো হয়। এই ট্রায়ালে ৮০০ জন স্বেচ্ছাসেবীকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ট্রায়াল থেকে পাওয়া তথ্য (ডেটা) ইঙ্গিত দিচ্ছে, দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত করোনার নতুন ধরনের বিরুদ্ধে ফাইজার-বায়োএনটেক টিকা সুরক্ষা দিতে পারে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত করোনার নতুন ধরনটির নাম ‘বি.১. ৩৫১ ’। দেশটিতে করোনার এই ধরনটিই এখন বেশি ছড়াচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকার হালনাগাদ ট্রায়ালের ডেটা গতকাল প্রকাশ করা হয়। দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত করোনার নতুন ধরনের বিরুদ্ধে এই টিকা কীভাবে কাজ করতে পারে, সে সম্পর্কে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের এই ডেটা প্রথম একটা ধারণা দেয় বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়।

হালনাগাদ ট্রায়ালের তথ্যের বরাত দিয়ে পৃথকভাবে ফাইজার-বায়োএনটেক গতকাল জানিয়েছে, করোনা ঠেকাতে তাদের টিকা প্রায় ৯১ শতাংশ কার্যকর।

৪৪ হাজার মানুষের ওপর পরীক্ষার ভিত্তিতে গত নভেম্বরে তারা জানিয়েছিল, তাদের টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর। এখন হালনাগাদ ট্রায়ালের তথ্যে এই টিকার কার্যকারিতা ৯১ দশমিক ৩ শতাংশ এসেছে। অবশ্য সেই সময়ের চেয়ে এখন বিশ্বে করোনার ধরনের সংখ্যা অনেক বেড়েছে।

মার্কিন বহুজাতিক ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজারের সঙ্গে এই টিকা তৈরি করেছে জার্মান প্রতিষ্ঠান ‘বায়োএনটেক’। যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা প্রয়োগ করা হচ্ছে।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন