default-image

কেনিয়ায় নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) শয্যাসংকট দেখা দিয়েছে। সংকট রয়েছে ভেন্টিলেটরের। দেশটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। কেনিয়ার চিকিৎসকদের সংগঠন জানিয়েছে, এই পরিস্থিতিতে রোগীদের সেবা দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, মেডিকেল প্র্যাকটিশনারস ফার্মাসিস্টস অ্যান্ড ডেন্টিস্টস ইউনিয়ন (কেএমপিডিইউ) এক বিবৃতিতে গতকাল মঙ্গলবার জানিয়েছে, দেশজুড়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনার চিকিৎসা প্রদানে কাজ করে যাচ্ছেন। তবে আইসিইউতে শয্যাসংকটের কারণে অনেক রোগীর জীবন বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়েছে।

বিজ্ঞাপন

কেনিয়ার বেশ কয়েকজন চিকিৎসক সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিজেদের পেশাগত অভিজ্ঞতা লিখছেন। তাতে বিয়োগান্ত ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছেন অনেকে।

কেনিয়ার স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক প্যাট্রিক অ্যামথ এক সংবাদ সম্মেলনে গতকাল বলেছেন, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন কেনিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। বিশেষ করে তানজানিয়া থেকে পর্যটকদের মাধ্যমে সীমান্ত পেরিয়ে করোনাভাইরাসের একটি ধরন এসেছে কেনিয়ায়। আর এই ধরনেই আক্রান্ত হচ্ছেন কেনিয়ার বেশির ভাগ মানুষ।

কেনিয়ার এক জাতীয় গবেষণায় দেখা গেছে, দেশটিতে ৫৩৭টি আইসিইউ বেড ও ৩০০-এর কম ভেন্টিলেটর আছে। এখনো পর্যন্ত আফ্রিকার দেশটিতে ১ লাখ ২২ হাজার মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার জনের।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন