default-image

করোনার টিকা সরবরাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বৈশ্বিক কোভ্যাক্স উদ্যোগ থেকে প্রথম টিকা পেল পশ্চিম আফ্রিকার দেশ ঘানা। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত করোনার টিকা আজ বুধবার ঘানায় পৌঁছায়।

‘কোভ্যাক্স’ মানে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল অ্যাকসেস ফ্যাসিলিটি। এই উদ্যোগের যৌথ নেতৃত্বে ডব্লিউএইচও ছাড়াও রয়েছে স্বল্পমূল্যে টিকা দেওয়ার বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্যাভি, সংক্রামক রোগের টিকা তৈরির জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতামূলক সংস্থা (সিইপিআই)। করোনার টিকার ন্যায্য বণ্টন নিশ্চিত করা এই উদ্যোগের লক্ষ্য।

ডব্লিউএইচও ও জাতিসংঘের শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) যৌথ বিবৃতি দিয়ে জানায়, ছয় লাখ টিকা নিয়ে একটি ফ্লাইট আজ ঘানার রাজধানী আক্রায় অবতরণ করে।

বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে বলা হয়, এটা একটা স্মরণীয় উপলক্ষ। কেননা, ঘানায় করোনার টিকা আসার বিষয়টি এই মহামারির সমাপ্তি ঘটানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।

করোনাকে প্রায় এক বছর আগে বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও। করোনা মোকাবিলায় বৈশ্বিক কোভ্যাক্স উদ্যোগ ঘোষণার প্রায় আট মাস পর প্রথম চালান কোনো দেশে সরবরাহ করা হলো।

ডব্লিউএইচও ও ইউনিসেফ বলছে, প্রাথমিক চালানের অংশ হিসেবে ঘানায় ছয় লাখ টিকা সরবরাহ করা হয়েছে। পরে দেশটিতে আরও টিকা সরবরাহ করা হবে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, কোভ্যাক্স উদ্যোগ থেকে চলতি বছরের শেষ নাগাদ ঘানার প্রায় ২৪ লাখ টিকা পাওয়ার কথা রয়েছে।

ঘানার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, টিকাদানের ক্ষেত্রে সম্মুখসারির স্বাস্থ্যকর্মী ও অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

ঘানার সরকারি তথ্যমতে, দেশটিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ৮১ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ৫৮২ জন। তবে দেশটিতে করোনায় সংক্রমিত ও মৃতের প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি হবে হবে মনে করা হচ্ছে।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন