default-image

চাদে সামরিক কাউন্সিল ক্ষমতা গ্রহণের প্রতিবাদে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত হয়েছেন বলে দেশটির প্রসিকিউটররা জানান। এক সপ্তাহ আগে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে চাদের প্রেসিডেন্ট ইদ্রিস ডেবি নিহত হন। এরপর তাঁর ছেলের নেতৃত্বে সামরিক কাউন্সিল দেশটির ক্ষমতা গ্রহণ করে।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে রাজধানী এনজামিনার প্রসিকিউটর ইউসুফ টম বলেন, শহরটিতে চারজন নিহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে একজন মারা গেছেন বিক্ষোভকারীদের হাতে। দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর মওনদুতে আরেকজন মারা গেছেন বলে সেখানকার প্রসিকিউটর জানান।

সব ধরনের বিক্ষোভের ওপর সামরিক বাহিনী নিষেধাজ্ঞা জারির পর দেশজুড়ে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। প্রেসিডেন্ট ইদ্রিস ডেবির নিহত হওয়ার এক সপ্তাহ পর বিক্ষোভের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে বিক্ষোভে নামার আহ্বান জানায় বিরোধী দলগুলো।

বিজ্ঞাপন

এদিকে গত সোমবার আলবার্ট পাহিমি পাদাককে বেসামরিক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সামরিক কাউন্সিল। ইদ্রিস ডেবির অধীনেই একই দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। তবে বিরোধী দলগুলো দেশটিতে পুরোপুরি বেসামরিক সরকারের দাবি জানিয়ে আসছে।

৩০ বছরের বেশি সময় ধরে চাদের রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিলেন ইদ্রিস ডেবি। ১১ এপ্রিল দেশটিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বিজয়ী ঘোষণার এক দিন পর তাঁর মৃত্যুর খবরটি জানানো হয়। ৭৯ শতাংশ ভোট পান তিনি। বেঁচে থাকলে তিনি ষষ্ঠবারের মতো ক্ষমতায় আসতেন। তবে তাঁর বিরুদ্ধে দমনপীড়নের অভিযোগ তুলে বিরোধীদের বেশির ভাগই নির্বাচন বর্জন করেছিল।

বিদ্রোহীরা রাজধানী এনজামিনা অভিমুখে কয়েক শ কিলোমিটার এগিয়ে এলে ইদ্রিস ডেবি সামরিক বাহিনীর সঙ্গে মিলে বিদ্রোহীদের মোকাবিলা করতে ময়দানে নামেন। সেখানে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে রাজধানীতে আনার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। এরপর তাঁর ছেলে মোহাম্মদ ইদ্রিস ডেবি কাকার নেতৃত্বে সামরিক কাউন্সিল মধ্য আফ্রিকার দেশটির ক্ষমতা গ্রহণ করে।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন