বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ইথিওপিয়ার এমন সিদ্ধান্তে মর্মাহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। একই সঙ্গে ইথিওপিয়ায় নিযুক্ত জাতিসংঘ কর্মীদের ওপর বিশ্ব সংস্থার পূর্ণ আস্থার কথা ব্যক্ত করেছেন। বলেছেন, ওই সিদ্ধান্তের বিষয়ে দেশটির সরকারের সঙ্গে জাতিসংঘ যোগাযোগ করছে। সংস্থাটি পুরোপুরি আশা করে, এই কর্মকর্তাদের আবার কাজে ফেরার অনুমতি দেওয়া হবে।

এ নিয়ে আলোচনা করতে আজ শুক্রবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসার কথা আছে বলে জানিয়েছেন কূটনীতিকেরা।

জাতিসংঘ কর্মীদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্তের কড়া ভাষায় নিন্দা জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি ইথিওপিয়ায় চলমান মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে যুক্ত জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের বহিষ্কারকে নজিরবিহীন পদক্ষেপ বলে আখ্যায়িত করেছেন।

আগামী সপ্তাহে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদের নতুন সরকার গঠন করার কথা রয়েছে। এর আগে আফ্রিকার দ্বিতীয় জনবহুল দেশটির ফেডারেল পার্লামেন্টের বেশ কয়েকটি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এমন এক পরিস্থিতিতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জাতিসংঘ কর্মীদের বহিষ্কারের কথা ঘোষণা করে।

বহিষ্কৃত কর্মকর্তাদের মধ্যে ইথিওপিয়ায় জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফ ও এর মানবিক সমন্বয় অফিসের আঞ্চলিক প্রধানেরা রয়েছেন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ওই সাত কর্মকর্তাকে দেশ ছাড়তে হবে।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন