default-image

করোনাভাইরাসের বিস্তার কমাতে রুয়ান্ডার রাজধানী কিগালিতে দেওয়া তিন সপ্তাহের লকডাউন শেষ হয়েছে। গতকাল সোমবার লকডাউনের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর প্রাণ ফিরেছে কিগালিতে। খবর বিবিসির।

আফ্রিকার দেশটির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলছেন, তিন সপ্তাহের মধ্যে কিগালিসহ সারা দেশে ভাইরাসের সংক্রমণ যথেষ্ট কমেছে।

বিজ্ঞাপন

লকডাউন শেষ হওয়ার পর কিগালির বেশ কিছু দোকান আবার চালু হয়েছে। রাস্তায় চলছে পাবলিক বাস। মোটরসাইকেলের চলাচলও বেড়েছে। কিগালির অধিবাসীরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার জন্য স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

বিবিসিকে মোটরসাইকেলের এক চালক বলেন, ‘শহরে প্রাণ ফিরেছে সত্যি, কিন্তু জনসমাগম এখনো ততটা নেই। তবে এ-ও ঠিক, বাড়িতে তিন সপ্তাহ কাটানো খুব কঠিন ছিল।’

লকডাউন প্রত্যাহার হলেও কিগালির স্কুল, বার, গির্জা, বিনোদনকেন্দ্র এখনো বন্ধ রয়েছে। আবার সব ধরনের জনসমাবেশ এখনো নিষিদ্ধ। তবে সোমবার থেকেই সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত কারফিউ চালু হয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা থার্কিস এমপুঙ্গা বলেন, ‘লকডাউনে নতুন শনাক্তের সংখ্যা কমে এসেছে। আগে প্রতিদিন দেশে প্রায় ৩৬৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হতো, এখন তা কমে হয়েছে প্রায় ১৫০ জনে। প্রতিদিনের মৃতের সংখ্যা ১০ থেকে কমে প্রায় ২ জনে এসে ঠেকেছে।'

গত রোববার রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট পল কাগমে জাতীয় ফুটবল দলের সঙ্গে একটি বৈঠকে বলেছেন, রুয়ান্ডা ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে করোনার টিকা পেতে পারে। তাই করোনা থেকে সুরক্ষায় প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থাগুলো মেনে চলতে হবে।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন