বিজ্ঞাপন

১৫ মাসের কারাদণ্ডাদেশ পাওয়ার পর গ্রেপ্তার এড়াতে গত সপ্তাহে পুলিশের কাছে ধরা দেন জ্যাকব জুমা (৭৯)। পরে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়। এ ঘটনার পর তাঁর নিজ প্রদেশ কাওয়াজুলু নাতালে (কেজেডএন) বিক্ষোভ দানা বাঁধে।

কাওয়াজুলু নাতালের প্রধান শিহলে জিকালালা গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, সেখানে এ নিয়ে ২৬ জন নিহত হয়েছেন। তবে প্রদেশের ঠিক কোন অঞ্চলে সহিংসতায় তাঁরা নিহত হয়েছেন, এ বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি।

বিক্ষোভ দমাতে দেশটিতে ইতিমধ্যে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। সে দেশের বিচারমন্ত্রী বলেছেন, জুমা চার মাস পর প্যারোলে মুক্তি পেতে পারেন।

২০১৮ সালে জ্যাকব জুমাকে ক্ষমতাচ্যুত করা সিরিল রামাফোসা এক বিবৃতিতে বলেন, যেকোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা মোকাবিলায় পূর্ণ আইনি শক্তি প্রয়োগ করা হবে।

পুলিশ বলেছে, জুমার কারাদণ্ডাদেশ নিয়ে দেখা দেওয়া অসন্তোষের সুযোগ নিচ্ছে কিছু অপরাধী। তারা চুরি, লুট ও সম্পদের ক্ষতি সাধন করছে।

জুমা গত বৃহস্পতিবার থেকে তাঁর জন্মস্থান কাওয়াজুলু-নাটাল প্রদেশের এসটকোর্ট কারেকশনাল সেন্টারে কারাজীবন শুরু করেন। এর আগে আদালত অবমাননার দায়ে গত ২৯ জুন তাঁকে কারাদণ্ড দেন আদালত।

ক্ষমতায় থাকাকালেই জুমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ তদন্ত করছিলেন উপপ্রধান বিচারপতি রেমন্ড জোনডো। সেই তদন্তের জন্যই তলব করা হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু তিনি আদালতে হাজির হননি।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন