বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, লাগোস শহরের অভিজাত ইকোয়ি এলাকায় এই বহুতল ভবনে বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি করা হচ্ছিল। স্থানীয় বাসিন্দা অলু আপাতা জানান, গত দুই বছর ধরে এই ভবনের নির্মাণকাজ চলছিল। তিনি বলেন, বিকেল তিনটার পরপর নিজের ভবনে প্রচণ্ড ঝাঁকুনি খান। প্রথমে ভেবেছিলেন এটি ভূমিকম্প।

পাশের একটি ভবনে দায়িত্বরত মুহাম্মাদ নামের একজন সরকারি কর্মকর্তা সিএনএনকে বলেন, তাঁরা হঠাৎ অস্বাভাবিক উচ্চ শব্দ শুনতে পান এবং দুলুনি অনুভব করেন। এরপরই তিনি জানালা দিয়ে দেখেন, ওই ভবনের একটি তলা আকেরটি তলার ওপর ধসে পড়ছে।

ঘটনার পরপরই সেখানে উদ্ধার কাজে এগিয়ে আসেন শত শত মানুষ। তারা খালি হাতেই ধ্বংসস্তূপ সরিয়ে আটকেপড়া মানুষের সন্ধান করেন। উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া রশিদ ওলামিলেকান নামের স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, তিনি খালি হাতে টেনে আটকেপড়া তিনজন শ্রমিককে ধ্বংস স্তূপের বাইরে নিয়ে আসতে পেরেছেন। ওই তিন শ্রমিককে দ্রুত হাসপাতালেও পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরে দুর্ঘটনাস্থলে রেডক্রসের সদস্যরা পৌঁছান।

সিএনএন বলছে, ভবন ধসের মতো দুর্ঘটনা নাইজেরিয়ার লাগোসে নতুন নয়। দেশটির সবচেয়ে বড় এই শহরে প্রায় দুই কোটি মানুষের বসবাস। ২০১৯ সালে সেখানে দুটি পৃথক ভবন ধসের ঘটনা ঘটে। ওই দুর্ঘটনায় অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটে। একজন বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, লাগোসে এক হাজারের বেশি ভবন ধসের মতো ঝুঁকিতে রয়েছে।

আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন