default-image

নাইজেরিয়ার জঙ্গি সংগঠন বোকো হারামের সামনে এখন কঠিন পরীক্ষা অপেক্ষা করছে বলে মনে করছেন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। এই জঙ্গিদের মূল বিচরণক্ষেত্র নাইজেরিয়ার প্রতিবেশী রাষ্ট্র ক্যামেরুন, চাদ ও নাইজারের সেনাদের মুখোমুখি পড়তে হবে এ পরীক্ষায়।

এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের মতে বোকো হারাম অর্থনৈতিক ও অস্ত্রের দিক দিয়ে সুরক্ষিত। ব্যাংক ডাকাতি, অপহরণ ও অন্যান্য উপায়ে তারা অনেক অর্থের মালিক। অস্ত্রাগার লুট করে তারা নাইজেরিয়ার সেনাবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধ করার মতো ক্ষমতাও অর্জন করেছে। তবে খুব শিগগির যখন ক্যামেরুন, চাদ ও নাইজারের শক্তিশালী সেনাদের মুখোমুখি হতে হবে, তখন তাদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে।

নাইজারে গত শুক্রবার আক্রমণ করে বোকো হারাম বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হয়। নাইজারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে বোকো হারামের জঙ্গিদের বিরুদ্ধে এ আক্রমণে চাদের সেনারাও অংশ নেয়। নাইজারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী দাবি করেছেন, সেনাদের সঙ্গে লড়াইয়ে ১০৯ জন ইসলামি জঙ্গি নিহত হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতেই গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এ কথা বলেন।

প্রতিবেশী এ দেশগুলোতে সেনাবাহিনীর ক্ষমতায় থাকাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে যুক্তরাষ্ট্র। সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখল বোকো হারামের জন্য বিপদের কারণ হবে বলে মনে করছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

বোকো হারামের সদস্যসংখ্যা চার থেকে ছয় হাজারের মতো। এর মধ্যে অনেক সাবেক সেনাসদস্যও রয়েছে। তাদের আছে সাঁজোয়া যান। এগুলোর মাধ্যমে জঙ্গিরা খুব সহজেই শহর এবং গ্রামে বিচরণ করতে পারে। বোকো হারামের অত্যাচারের নিষ্ঠুরতা ও প্রতিশোধের পরিকল্পনা করেন তাদের নেতা আবু বকর শেকু। যদি আবু বকর শেকু এই মুহূর্তে কোনো যুদ্ধে মারা যান তাহলে বোকো হারাম সমস্যায় পড়বে। কারণ এখন পর্যন্ত তাঁর কোনো উত্তরাধিকার নির্ধারিত হয়নি।


বোকো হারাম নিজেদের আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট বা আইএসের সঙ্গে সম্পর্ক আছে বলে তাদের একটি ভিডিও বার্তায় প্রচার করেছে। কিন্তু আইএসের পক্ষ থেকে এ ধরনের কোনো কিছু বলা হয়নি। একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, দেখার বিষয় আইএস বোকো হারামকে কোন চোখে দেখছে। কারণ বোকো হারাম এমন কিছু কাজ করেছে, যা আইএস সমর্থন করে না।


নাইজেরিয়ার ভেতরে বোকো হারাম ক্রমেই তাদের শক্তি বৃদ্ধি করছে। এক বছরের মধ্যে তারা প্রায় ৩০টি অঞ্চল দখল করে নিয়েছে। এর মধ্যে শহর ও গ্রাম দুটোই আছে। এতে তাদের শক্তি দিন দিন বাড়ছে। তারা নাইজেরিয়াকে নিজেদের নিরাপদ বিচরণক্ষেত্রে পরিণত করছে। তবে বোকো হারামের এই শক্তি বৃদ্ধির বিষয়টি একপর্যায়ে তাদের দুর্বলতা হিসেবে দেখা দিতে পারে।


মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালক লেফটেন্যান্ট জেনারেল ভিনসেন্ট স্টুয়ার্ট বলেন, বোকো হারামের শক্তিই তাদের দুর্বলতা হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে। যত বেশি অঞ্চল তারা দখল করবে, ততই তাদের শক্তি কমতে থাকবে। আক্রমণ ঠেকানোর মতো ক্ষমতা তাদের কমতে থাকবে। অঞ্চল বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা খাদ্যসংকটে পড়বে। তা ছাড়া নিজেদের যেভাবে তারা জঙ্গি বলে প্রচার করছে, সেটাও তাদের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন