default-image

প্রতিকূল আবহাওয়ায় কনটেইনারবাহী জাহাজ আড়াআড়ি আটকে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সুয়েজ খাল। তৈরি হয়েছিল ভয়াবহ জাহাজজট। অবশেষে সেই জট কেটেছে। ওই ঘটনার ১২ দিন পর আজ শনিবার বিশ্বের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই নৌবাণিজ্যপথে জাহাজ চলাচল পুরোপুরি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে বলে জানিয়েছে মিসরের সুয়েজ খাল কর্তৃপক্ষ (এসসিএ)।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৩ মার্চ স্থানীয় সময় সকালে সুয়েজ খালে আড়াআড়ি আটকে যায় কনটেইনারবাহী জাহাজ ‘এভার গিভেন’। জাহাজটির পরিচালনাকারী তাইওয়ানের প্রতিষ্ঠান এভারগ্রিন মেরিন করপোরেশন জানায়, জাহাজটি সুয়েজ খাল অতিক্রম করছিল। ওই সময় জাহাজটি প্রবল বাতাস ও ধূলিঝড়ের কবলে পড়ে নিয়ন্ত্রণ হারায়। একপর্যায়ে সংকীর্ণ সুয়েজ খালে প্রায় আড়াআড়িভাবে আটকে যায়।
২০১৮ সালে তৈরি পানামার পতাকাবাহী জাহাজটির দৈর্ঘ্য ৪০০ মিটার। ওজন প্রায় ২ লাখ ২০ হাজার টন। জাহাজটি ২০ হাজার কনটেইনার ধারণ করতে সক্ষম। ঘটনার সময় জাহাজটিতে ১৮ হাজার ৩০০ কনটেইনার ছিল।

বিজ্ঞাপন

জাহাজটি আটকে যাওয়ার পরপরই উদ্ধারকাজ শুরু করে এসসিএ। তবে কোনোভাবেই বিশাল এই জাহাজটি আবারও পানিতে ভাসানো সম্ভব হচ্ছিল না। বিলম্বিত উদ্ধারকাজের কারণে সুয়েজ খালের দুই প্রবেশমুখে আটকে যায় একাধিক জাহাজ। দেখা দেয় তীব্র জাহাজজট। একপর্যায়ে সুয়েজ খাল অতিক্রমের অপেক্ষায় জটে থাকা জাহাজের সংখ্যা ৪২২–এ উন্নীত হয়।
নানা চেষ্টার পর গত ২৯ মার্চ এভার গিভেনকে আবারও পানিতে ভাসানো সম্ভব হয়। সাত দিন বন্ধ থাকার পর সুয়েজ খালে জাহাজজট ধাপে ধাপে কাটতে শুরু করে বলে জানায় রয়টার্স।
আজ এক বিবৃতিতে এসসিএ জানিয়েছে, জটে আটকে থাকা সর্বশেষ ৮৫টি জাহাজ শনিবার সুয়েজ খাল অতিক্রম করেছে। এর মধ্যে এভার গিভেন মুক্ত হওয়ার পর সুয়েজের প্রবেশমুখে আসা ২৪টি জাহাজও রয়েছে। ১২ দিন পর সুয়েজ খালের জট পুরোপুরি কেটে গেছে।

এসসিএ চেয়ারম্যান ওসামা রাবি বলেন, ‘সুয়েজ খালে জাহাজ আটকে পড়ার ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। দুই দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হতে পারে।’
বিশ্ববাণিজ্যে সুয়েজ খালের গুরুত্ব অনেক। এটি নৌপথে এশিয়া ও ইউরোপের দূরত্ব অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছে। সুয়েজ খাল ব্যবহার করে এশিয়া ও ইউরোপের মধ্যে তুলনামূলক কম খরচে পণ্য পরিবহন করা যায়। বৈশ্বিক পণ্য বাণিজ্যের ১২ শতাংশ সুয়েজ খাল হয়ে পরিবহন করা হয়।
এসসিএর তথ্যমতে, গত বছর সুয়েজ খাল দিয়ে প্রায় ১৯ হাজার পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল করেছে। প্রতিদিন গড়ে ৫১টির বেশি জাহাজ এই জলপথ পাড়ি দিয়েছে। গত বছর ১১৭ কোটি টন পণ্য সুয়েজ খাল দিয়ে গন্তব্যে গেছে।

বিজ্ঞাপন
আফ্রিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন