default-image

আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আবদেলমাদজিদ তেবউনকে সেনা হাসপাতালের বিশেষায়িত চিকিৎসা ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। সংবিধান পরিবর্তনের বিষয়ে গণভোটের কয়েক দিন আগে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার দেশটির প্রেসিডেন্টের অফিস এ তথ্য জানিয়েছে।

দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে প্রেসিডেন্টের বিবৃতি তুলে ধরা হলেও তিনি করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন কি না, তা স্পষ্ট করা হয়নি। তবে বলা হয়েছে, তাঁর পরিস্থিতি স্থিতিশীল রয়েছে। তাঁকে নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। তিনি কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত শনিবার আবদেলমাদজিদ তেবউন (৭৫) বলেন, তাঁর ঘনিষ্ঠ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা করোনা পজিটিভ হওয়ায় তিনি আলাদা থাকছিলেন। তখন তিনি বলেন, ‘আমি সবাইকে নিশ্চিত করে বলছি, আমি সুস্থ ও ভালো আছি। আমার কাজ চালিয়ে যেতে পারছি।’

বিজ্ঞাপন

আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট তেবউনের যদি কোভিড-১৯ নিশ্চিত করা হয়, তবে বিশ্বে যে স্বল্প কয়েকজন নেতা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন, তার তালিকায় থাকবেন তিনি। এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বোলসোনারো করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, আলজেরিয়ার গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে আবদেলমাদজিদ তেবউনকে। তিনি গত বছরে দেশটির ব্যাপক বিক্ষোভের পর সংবিধান পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন। ওই বিক্ষোভে ২০ বছর পর ক্ষমতাচ্যুত হন আবদেল আজিজ বুতেফ্লিকা।
গত বছরের ডিসেম্বরে নির্বাচনের পর নতুন সংবিধান নিয়ে কাজ শুরু করেন আবদেলমাদজিদ তেবউন। এতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মেয়াদ সীমিত করার পাশাপাশি পার্লামেন্ট ও বিচারব্যবস্থা শক্তিশালী করার কথা বলা হয়েছে।

তেল ও গ্যাস থেকে আয় কমে যাওয়ায় আলজেরিয়া দীর্ঘদিন ধরেই অর্থনৈতিক সমস্যায় রয়েছে। করোনা মহামারিতে দেশটির অর্থনীতি আরও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। দেশটিতে ৫৫ হাজারের বেশি করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে আর মারা গেছে দুই হাজারের বেশি মানুষ।

মন্তব্য পড়ুন 0