গোতাবায়া এখন কোথায় আছেন, তা এখনো নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারছেন না। তবে গতকাল ভারতের গণমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়, গোতাবায়াকে সেনা সদর দপ্তরে নেওয়া হয়েছে। সরকারের শীর্ষ একটি সূত্রের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে গণমাধ্যমটি। শ্রীলঙ্কার গোয়েন্দা বিভাগের কাছে তথ্য ছিল, গতকালের বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে। এর পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার রাতেই গোতাবায়াকে সেনা সদর দপ্তরে সরিয়ে নেওয়া হয়।

তবে সেনা সদর দপ্তর বা অন্য যেখানেই থাকুন, সেই স্থান থেকে আজ রোববার এক বার্তায় গোতাবায়া রান্নার গ্যাসের সঠিক সরবরাহের নির্দেশ দেন। তীব্র জ্বালানি–সংকটে থাকা দেশটি ৩ হাজার ৭০০ মেট্রিক টন এলপিজি গ্যাস পেয়েছে। প্রেসিডেন্টের দপ্তর সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। এরপরই অজ্ঞাত স্থান থেকে প্রেসিডেন্টের এ বার্তা।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সাধারণ মানুষ গ্যাসের দাবিতে সড়ক অবরোধ করেন।

আজ শ্রীলঙ্কার কেরাওয়ালাপিতিয়ায় গ্যাসবাহী একটি জাহাজ ভিড়েছে। এরপর দ্বিতীয় ধাপে ৩ হাজার ৭৪০ মেট্রিক টন গ্যাস আসছে কাল সোমবার। আর তৃতীয় ধাপে আগামী শুক্রবারে আরও ৩ হাজার ২০০ মেট্রিক টন গ্যাস আসছে।

গতকালের অভূতপূর্ব বিক্ষোভের পর হাজার হাজার মানুষ প্রেসিডেন্ট ভবন দখল করলেও আজ রোববার কোনো বিক্ষোভের খবর নেই। তবে আজ বিক্ষোভকারীরা জানিয়ে দিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ না করা পর্যন্ত তাঁরা বাসভবন ছাড়বেন না।

গতকাল বিক্ষোভের জেরে শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্টের স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা আবেবর্ধনে ঘোষণা দেন, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে আগামী বুধবার (১৩ জুলাই) পদত্যাগ করবেন। দেশজুড়ে বিক্ষোভ জোরালো হওয়ার পর এই ঘোষণা দেন তিনি। প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া তাঁকে এ কথা বলেছেন বলে জানান স্পিকার।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন