ইয়েমেনে রাজনৈতিক সংকট কাটিয়ে উঠতে একটি অন্তর্বর্তী পরিষদ গঠনে দেশটির বিবদমান রাজনৈতিক দলগুলো রাজি হয়েছে। জাতিসংঘের পাঠানো মধ্যস্থতাকারী জামাল বেনোমার গতকাল শুক্রবার এ কথা জানিয়েছেন। খবর রয়টার্সের।
হুতি শিয়া মুসলিম মিলিশিয়া বাহিনী সম্প্রতি ইয়েমেনের ক্ষমতা নিয়ে নেয়। এ প্রেক্ষাপটে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে রাজনৈতিক দলসহ বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে মতান্তর চলছিল। এ অবস্থায় অন্তর্বর্তী সরকার গঠনের এ উদ্যোগ নেওয়া হলো। হুতিরা গত মাসে দেশটির প্রেসিডেন্টকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করে। এতে রাষ্ট্রীয় বহু প্রতিষ্ঠানে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়।
জাতিসংঘের মধ্যস্থতাকারী জামাল বেনোমার এক বিবৃতিতে বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সম্মতির ব্যাপারটি কোনো চূড়ান্ত মতৈক্য না হলেও একটি গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি।
অন্তর্বর্তী পরিষদে ইয়েমেনের ৩০১ সদস্যের পার্লামেন্টের আইনপ্রণেতারাও থাকবেন। তাঁদের মধ্যে সাবেক সরকারি দলের রাজনীতিকদের প্রাধান্য রয়েছে। তাঁরা হুতিদের প্রতি সহানুভূতিশীল। নতুন অন্তর্বর্তী পরিষদে ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চল এবং নারী ও তরুণদের প্রতিনিধিত্ব থাকবে। সবাই মিলে দেশটির জন্য দিকনির্দেশনামূলক আইন প্রণয়ন করবেন।
এর আগে গত রোববার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ হুতিদের প্রতি ‘অবিলম্বে ও নিঃশর্তভাবে’ সমঝোতায় রাজি হয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানায়। প্রেসিডেন্ট ও মন্ত্রীদের শূন্যপদে নিয়োগের জন্য আরও আলোচনা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন বেনোমার। হুতি বাহিনী বা সুন্নি ইসলামপন্থী এবং সমাজতন্ত্রী দলের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।
ক্ষমতার আরও বেশি ভাগ পাওয়ার দাবিদার হুতি বাহিনী গত সেপ্টেম্বরে রাজধানী সানায় হামলা চালায়। তারা ধীরে ধীরে সরকারের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে শুরু করে।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন