বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গণমাধ্যমের প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, ইতালির রোমে জি-২০ জোটের আসন্ন সম্মেলনে সি অংশ নেবেন না। সির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠানে বাইডেনের জন্য এটি একটি ভালো স্থান হতে পারত।

জুরিখে চীনের শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক ইয়াং জাইচির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভানের এক বৈঠকের পর বাইডেন-সি ভার্চ্যুয়াল বৈঠক আয়োজনের ওই পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করা হলো। ওই জ্যেষ্ঠ মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, ইয়াং ও সুলিভান দীর্ঘ ৬ ঘণ্টা বৈঠক করেন।

চীনের রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া জানায়, বৈঠকে ইয়াং দুই দেশকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন। ইয়াংকে উদ্ধৃত করে বার্তা সংস্থাটি জানায়, বৈঠকে তিনি সুলিভানকে বলেন, চীন ও যুক্তরাষ্ট্র পরস্পরকে সহযোগিতা করলে তাতে এই দুই দেশ ছাড়াও গোটা বিশ্ব উপকৃত হবে। আবার চীন ও যুক্তরাষ্ট্র বিবাদে জড়ালে তাতে এ দুই দেশ ছাড়াও গোটা বিশ্ব ভীষণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

তাইওয়ান নিয়ে চীনের ক্রমবর্ধমান আগ্রাসী মনোভাব, অস্ট্রেলিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু শক্তিচালিত ডুবোজাহাজ বিক্রির সিদ্ধান্ত, বেইজিং-ওয়াশিংটন বাণিজ্য বিরোধ ও জিনজিয়াংয়ে সংখ্যালঘু মুসলিম উইঘুর সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে চীনের ব্যাপকভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ—এমন নানা চলমান ঘটনার প্রেক্ষাপটে বাইডেন-সির বৈঠক আয়োজনের পরিকল্পনা বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

সিনহুয়া জানায়, বৈঠকে ইয়াং তাইওয়ান, হংকং, জিনজিয়াং ও অন্যান্য ইস্যুতে তাঁর দেশের অবস্থান পুনরায় তুলে ধরেছেন। সেই সঙ্গে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক না গলাতে এসব ইস্যু ব্যবহার না করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

জুরিখ বৈঠকের পর ব্রাসেলস ও প্যারিস সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে সুলিভানের। ইয়াংয়ের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠক নিয়ে সেখানে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) মিত্রদেশ ও অন্য অংশীদারদের কাছে সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরবেন।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন