বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা তাঁদের আলোচনায় আফগানিস্তানের জাতীয় পুনর্গঠনের ওপর বিশেষ জোর দেন। সেই সঙ্গে দেশটির নতুন শাসকগোষ্ঠী তালেবানের প্রতি একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের আহ্বান জানান, যাতে সেই সরকার আফগানিস্তানের সব জাতিগোষ্ঠী ও রাজনৈতিক দলের স্বার্থ সমুন্নত রাখতে পারে। বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আফগানিস্তানে, বিশেষত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে পড়া ও মাদক চোরাচালানের মতো হুমকি প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা গ্রহণ করার ওপরও জের দেন।

আফগানিস্তানের বিপজ্জনক মানবিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এবং সেখান থেকে প্রতিবেশী দেশগুলোতে শরণার্থীর ঢল নামার হুমকির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। তাঁরা আফগানিস্তানের মানুষ যাতে শান্তিপূর্ণ জীবন ফিরে পায় ও দেশটির অর্থনীতি পুনরুজ্জীবিত হয়, সেই লক্ষ্যে পদক্ষেপ নেওয়ারও আহ্বান জানান।
মানবাধিকার বিষয়ে তালেবানকে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সময় দেওয়া উচিত: ইমরান খান
মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে সেরা উপায়, তালেবানের সঙ্গে কাজ করা ও একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন এবং নারীর অধিকার রক্ষার বিষয়ে তাদের উৎসাহিত করা।

গত বুধবার ইসলামাবাদে নিজ বাসভবন থেকে সিএনএনকে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, ‘তালেবান আফগানিস্তানে পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে। তারা যদি সব পক্ষকে নিয়ে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনে কাজ করতে পারে, তবে আবার দেশটিতে শান্তি ফিরতে পারে। তারা যদি ভুল পথে যায়, তবে আমরা যে আশঙ্কা করছি, দেশটিতে সেই বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে। শুরু হতে পারে এক বিরাট মানবিক সংকট ও শরণার্থী সমস্যা।’

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংকট এড়াতে তালেবান আন্তর্জাতিক সহায়তা চাইছে। তালেবানকে বৈধতা পাওয়ার ক্ষেত্রে সঠিক পথে চলতে এ সহায়তা কাজে লাগানো যেতে পারে। তবে আফগানিস্তানকে বাইরের দেশগুলোর নিয়ন্ত্রণ করার ব্যাপারে সতর্ক করে দেন তিনি।

ইমরান খান বলেন, ‘আফগানিস্তানে কোনো পুতুল সরকার জনগণ সমর্থন করবে না। তাই তালেবানকে নিয়ন্ত্রণ করার বদলে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনে তাদের উৎসাহ দেওয়া উচিত। কেননা, দেশটির বর্তমান তালেবান সরকার পরিষ্কারভাবে অনুধাবন করেছে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহায়তা ছাড়া তারা সংকট থামাতে পারবে না। সে জন্য আমাদের উচিত, তাদের সঠিক নির্দেশনা দেওয়া।’

তালেবান সরকারের সঙ্গে কাজ করতে হবে: পুতিন

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন শুক্রবার সাংহাই কো–অপারেশন অর্গানাইজেশনের বৈঠকে বলেছেন, তালেবান সরকারের সঙ্গে তাঁর দেশের কাজ করা প্রয়োজন। দুশানবেতে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশ নিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

পুতিন আরও বলেন, আফগানিস্তান নিয়ে জাতিসংঘের সম্মেলন আয়োজন করাকে সমর্থন করে তাঁর দেশ। এ ছাড়া বিশ্বশক্তিগুলোর উচিত, আফগানিস্তানের জব্দ করা অর্থ ছাড়ে ব্যবস্থা নেওয়া।

আফগানিস্তানের অর্থ ছাড়ের আহ্বান উজবেক প্রেসিডেন্টের

রয়টার্স আরও জানায়, তালেবান সরকারের সঙ্গে আলোচনা গতিশীল করতে উজবেকিস্তানের প্রেসিডেন্ট শাভকাত মির্জাইওয়েভ বিভিন্ন দেশের ব্যাংকে থাকা আফগানিস্তানের অর্থ ছাড় করার অনুরোধ জানিয়েছেন। সাংহাই কো–অপারেশন অর্গানাইজেশনের বৈঠকে এ আহ্বান জানান তিনি।

আফগানিস্তানে মানবিক সংকট এড়াতে পদক্ষেপ নিতে হবে: আইএমএফ
এদিকে এএফপি জানায়, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বৃহস্পতিবার বলেছে, আফগানিস্তানে মানবিক বিপর্যয় প্রতিরোধে বিশ্ব সম্প্রদায়কে জরুরিভিত্তিতে পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। সংস্থার মুখপাত্র গ্যারি রাইস সাংবাদিকদের ইঙ্গিত দেন, আফগানিস্তানে রেমিট্যান্স ও স্বল্পপরিসরে অর্থ সরবরাহকে সমর্থন করবেন তাঁরা।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন