বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দেশটির ধাই কোয়ার ফরেনসিক সায়েন্স বিভাগের একটি সূত্র জানায়, ৯২ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৯টি মৃতদেহ শনাক্ত করার পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হায়দার আল-জামিলি এএফপিকে বলেন, প্রায় ৭০ জন রোগীর ধারণক্ষমতার করোনা ওয়ার্ডের ভেতরে এখনো লোকজন আটকে থাকতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সূত্র বলছে, চিকিৎসক দল ও নিহত ব্যক্তিদের আত্মীয়দের পক্ষে মৃতদেহ শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়েছে। ধংসস্তূপের নিচে আরও মৃতদেহ থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অগ্নিকাণ্ডের পর হাসপাতালটির বাইরে বিক্ষুব্ধ লোকজন বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। বিক্ষুব্ধ লোকজন সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট দিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের পদত্যাগ দাবি করেছেন।

ইরাকের পার্লামেন্টের স্পিকার মোহাম্মদ আল-হালবৌসি এক টুইটে বলেছেন, ইরাকি জনগণের জীবন রক্ষায় ব্যর্থতার স্পষ্ট প্রমাণ এ অগ্নিকাণ্ড। এ ধরনের বিপর্যয়কর ব্যর্থতা অবসানের সময় এসেছে।

গত এপ্রিলে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের একটি হাসপাতালে আগুন লেগে অন্তত ৮২ জন মারা যান। অক্সিজেন ট্যাংক বিস্ফোরিত হয়ে এ আগুন লেগেছিল। এ ঘটনার জেরে দেশটির তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাসান আল-তামিমি পদত্যাগ করেন।

বছরের পর বছর ধরে চলা যুদ্ধ-সংঘাত, অবহেলা, দুর্নীতির কারণে ইরাকের স্বাস্থ্য খাতের অবস্থা এমনিতেই নাজুক। তার ওপর করোনা মহামারি দেশটির স্বাস্থ্যসেবাকে মারাত্মক চাপের মধ্যে ফেলেছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন