default-image

পারমাণবিক বোমা তৈরির অন্যতম উপাদান ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচি থেকে ইরানের সরে আসা উচিত বলে মন্তব্য করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। সেই সঙ্গে এ কাজে যতটুকু এগিয়েছে ইরান, তা–ও গুটিয়ে ফেলা উচিত বলে মনে করে সংস্থাটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন গতকাল সোমবার এক বিবৃতিতে এ বক্তব্য দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার সিদ্ধান্ত থেকে ইরান সরে এলে ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তিকে বাঁচানোর একটি চেষ্টা করা যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক কূটনীতি কাজে লাগানো যেতে পারে।

বিবৃতিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত ২৭টি সরকার বলেছে, ‘ইরান ফরদো নিউক্লিয়ার প্ল্যান্টে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার পদক্ষেপ নিয়েছে এবং এটি ২০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করার কথা বলেছে। এটি খুবই গুরুতর বিষয় এবং এতে উদ্বেগ বাড়ছে।’

বিজ্ঞাপন

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলছে, ‘এই গুরুতর পরিস্থিতিতে ইরানের নেওয়া পদক্ষেপ কূটনৈতিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করবে। আমাদের আহ্বান, ইরান যেন এ ক্ষেত্রে আর অগ্রসর না হয় এবং অবিলম্বে আগের অবস্থায় ফিরে যায়।’

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে তেহরান ফরদো প্ল্যান্টে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার কাজে গতি আনার ঘোষণা দেয়। বিশ্লেষকেরা বলছেন, এর ফলে বিশ্বের পরাশক্তিগুলো যেভাবে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি সীমিত করতে চেয়েছিল, তা ভন্ডুল হয়ে যেতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের সঙ্গে ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তি থেকে সরে আসার ঘোষণা দিয়েছিলেন। এর ফলেই ইরানের সঙ্গে হওয়া পরমাণু কর্মসূচি সীমিত করার চুক্তিটির ভবিষ্যৎ নিয়ে আশঙ্কা দেখা দেয়। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এখন তাকিয়ে আছেন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ গ্রহণের দিকে। তাঁদের আশা, প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর জো বাইডেন ট্রাম্প প্রশাসনের নীতিতে পরিবর্তন আনতে পারেন।

মন্তব্য করুন