ইয়েমেনে একটি সামরিক প্রশিক্ষণ শিবিরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় কমপক্ষে ৮০ সেনার মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দেশটির কেন্দ্রীয় প্রদেশ মারিবে এ ঘটনা ঘটে। এই হামলায় অনেকে আহত হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, রাজধানী সানা থেকে ১৭০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ছিল ওই সামরিক প্রশিক্ষণ শিবির। ইয়েমেনের সরকার ওই শিবিরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্য হুতি বিদ্রোহীদের দায়ী করেছে। তবে এখন পর্যন্ত এই হামলায় কোনো পক্ষ দায় স্বীকার করেনি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, হামলায় নিহত মানুষের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট আবদরাব্বু মনসুর হাদি এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। এমন হামলাকে ‘কাপুরুষোচিত’ অভিহিত করে তিনি বলেছেন, এর মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে যে হুতিদের শান্তি স্থাপনে কোনো আগ্রহ নেই।

এর আগে গত বছরের এডেনে আগস্টে হুতি বিদ্রোহীদের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র ইয়েমেনের সরকারি বাহিনীর কুচকাওয়াজে আঘাত হেনেছিল। ওই হামলায় কমপক্ষে ৩২ জন নিহত হয়েছিলেন।

২০১৫ সালের মার্চ থেকে সংঘাতে জর্জর হয়ে আছে ইয়েমেন। ওই সময় হুতি বিদ্রোহীরা দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় এবং প্রেসিডেন্ট হাদিকে বিদেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য করে। বিশ্লেষকদের মতে, ইয়েমেনে গৃহযুদ্ধের আড়ালে সৌদি আরবসহ সুন্নি দেশগুলোর সঙ্গে ছায়াযুদ্ধ চলছে শিয়া মতাবলম্বী ইরানের। এরই মধ্যে বছরের পর বছর ধরে চলা এই সংঘর্ষে ইয়েমেনে লাখ লাখ লোকের মৃত্যু হয়েছে। জাতিসংঘের মতে, বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ মানবিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে ইয়েমনে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0