default-image

যুক্তরাষ্ট্রের নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন ইয়েমেন পরিস্থিতি নিয়ে সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁদের মধ্যে আঞ্চলিক নিরাপত্তা প্রশ্নে মানবাধিকার ও ইয়েমেনের যুদ্ধ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ইতিমধ্যে নতুন মার্কিন প্রশাসন ইয়েমেনের যুদ্ধ বন্ধ করার উদ্যোগের কথা জানিয়েছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস শনিবার জানান, গত শুক্রবার সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান আল সৌদের সঙ্গে কথা হয় ব্লিঙ্কেনের। সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা এসপিএ জানিয়েছে, টেলিফোনে তাঁদের মধ্যে এই আলোচনা হয়।

বিজ্ঞাপন

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, এমন একদিন এই দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে কথা হলো, যেদিন যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, তারা সন্ত্রাসের তালিকা থেকে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের নাম বাদ দিতে যাচ্ছে।

এসপিএর প্রতিবেদনে বলা হয়, পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত হওয়ায় ব্লিঙ্কেনকে অভিনন্দন জানান প্রিন্স ফয়সাল। এর আগে গত বৃহস্পতিবার উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে প্রথম সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করেন ব্লিঙ্কেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন বলছে, তারা ইয়েমেনে সৌদি আরবের কর্মকাণ্ডে সব ধরনের সহযোগিতা বন্ধ করে দেবে। ওয়াশিংটন বলছে, তাদের প্রত্যাশা, রিয়াদ মানবাধিকার প্রশ্নে উন্নয়ন ঘটাবে। এই দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে ঘটা হামলা প্রশ্নে সন্ত্রাসবাদ ও সমন্বয় নিয়েও আলোচনা হয় বলে জানান নেড প্রাইস।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন