বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি সৌদি আরবে এমনই এক প্রতিযোগিতা থেকে ৪০টির বেশি উটকে বাদ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, ‘সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায়’ অংশ নেওয়ার জন্য এসব উটের কসমেটিক সার্জারি করা হয়েছে।

কাতারের সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতার নাম ‘কিং আবদুল আজিজ ক্যামেল ফেস্টিভ্যাল’। উট নিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ষিক আয়োজন এটি। এবারের আয়োজন বসেছে ১ ডিসেম্বর। চলবে আগামী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত। এবার এই উৎসবের ষষ্ঠ আসর। প্রতিযোগিতায় বিজয়ী উটগুলোর মালিকেরা সব মিলিয়ে ২৫ কোটি রিয়াল পুরস্কার পাবেন।

তবে এবার উৎসব শুরুর পরপরই সমালোচনা ছড়িয়ে পড়ে। কৃত্রিমভাবে সৌন্দর্য বাড়ানোর অভিযোগ ওঠে ১৪৭টি উটের মালিকের বিরুদ্ধে। সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে যাচাই–বাছাই শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রতিযোগিতা থেকে ৪০টির বেশি উটের নাম বাদ দেন আয়োজকেরা।

সৌদি প্রেস এজেন্সির (এসপিএ) প্রতিবেদনের বরাতে আল জাজিরা জানায়, সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগে এসব উটকে বিশেষ ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে। এ ইনজেকশন মূলত ত্বক টানটান রাখা ও চেহারা থেকে বলিরেখা দূর করার কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। আরও সুঠাম দেখানোর জন্য এসব উটকে হরমোন ইনজেকশন দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে উৎসবের আইনবিষয়ক কমিটির মুখপাত্র মারজুক আল–নাত্তো জানান, এই উৎসবে অংশ নেওয়া উটের সৌন্দর্য বাড়াতে যেকোনো ধরনের কৃত্রিম উপায় অবলম্বন করা নিষিদ্ধ। এটা প্রতারণার শামিল। প্রতারণা প্রমাণিত হওয়ায় প্রতিযোগিতা থেকে ৪০টির বেশি উটের নাম কাটা গেছে।

মারজুক আল–নাত্তো আরও বলেন, প্রতারণার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় উটপ্রতি এক লাখ রিয়াল পর্যন্ত জরিমানা গুনতে হয় মালিকদের। তবে এবারই এতগুলো উটকে প্রতিযোগিতা থেকে একসঙ্গে বাদ দেওয়ার ঘটনা ঘটল।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন