বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, এ ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ঘটনা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তের লঙ্ঘন। এ রকম ঘটনা উত্তর কোরিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলো ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জন্য হুমকি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এ সময় উত্তর কোরিয়ার আনুষ্ঠানিক নাম ডেমোক্রেটিক পিপলস রিপাবলিক অব কোরিয়া উল্লেখ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আমরা কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রাখতে চাই। তাদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যেতে চাই।’ যুক্তরাষ্ট্রের মুখপাত্র আরও বলেন, জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন স্থানীয় সময় আজ বৃহস্পতিবার জাপানের পররাষ্ট্র ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের সঙ্গে নিরাপত্তা ইস্যুতে ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে অংশ নেবেন। টোকিওতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রাহম ইমানুয়েলের মাধ্যমে তাঁরা এই ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে অংশ নেবেন।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং–উন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তিনবার বৈঠক করেন। তবে ব্যক্তিগত পর্যায়ের ওই কূটনৈতিক আলোচনা থেকে কোনো চুক্তিতে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি।

দক্ষিণ কোরিয়ার সেনাবাহিনী বলেছে, ধারণা করা হচ্ছে চীন সীমান্তবর্তী জাগাং প্রদেশ থেকে পূর্বে সাগরে উত্তর কোরিয়া ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন