বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র কাজাখস্তানের সবচেয়ে বড় শহর আলমাতির প্রাণকেন্দ্রে গতকাল মঙ্গলবার বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও সাউন্ড গ্রেনেড ব্যবহার করে। কয়েক ঘণ্টা ধরে আশপাশের এলাকাগুলোতেও পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়।

কাজাখস্তানে গাড়িতে এলপিজি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। দেশটিতে গত শনিবার এলপিজির দাম দ্বিগুণের বেশি বাড়ানো হয়। পরদিন রোববার দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের তেলসমৃদ্ধ প্রদেশ মানজিস্তাউয়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। পরে এই বিক্ষোভ আলমাতিসহ দেশটির অন্যত্র ছড়িয়ে পড়ে।

মানজিস্তাউ ও আলমাতিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে দেশটির প্রেসিডেন্ট তোকায়েভ দাবি করেন, এই সহিংসতার পেছনে দেশি-বিদেশিদের প্ররোচনা রয়েছে।

কাজাখস্তানের এই বিক্ষোভ রাজনৈতিকভাবে স্থিতিশীল ও কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্রের ভাবমূর্তি নাড়িয়ে দিয়েছে।

স্বাধীনতার পর তিন দশক ধরে নিজেদের তেল ও ধাতুশিল্পে শত শত কোটি ডলার বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে এই ভাবমূর্তিকেই ব্যবহার করেছে কাজাখস্তান।
মন্ত্রিসভার ভারপ্রাপ্ত সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রেসিডেন্ট তোকায়েভ। তিনি ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী ও প্রাদেশিক গভর্নরদের এলপিজির আগের দাম পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি গ্যাসোলিন, ডিজেল ও সামাজিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভোগ্যপণ্যের দাম পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট তোকায়েভ দাবি করেন, জরুরি অবস্থা জারির পর বিক্ষোভকবলিত শহরগুলোর পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাতভর আলমাতি ছাড়াও দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর শাইমকেন্ত ও তারাজে সরকারি ভবনগুলোতে হামলা হয়েছে। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ ৯৫ জন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। পুলিশ দুই শতাধিক ব্যক্তিকে আটক করেছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন