বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১ জানুয়ারি কাজাখস্তানে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) দাম দ্বিগুণের বেশি বাড়ানো হয়। এর জেরে শুরু হয় বিক্ষোভ। পরে তা দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। সবচেয়ে বেশি সহিংসতা দেখেছে আলমাতি শহর। ছয় মাসের জন্য বেঁধে দেওয়া হয়েছে জ্বালানির সর্বোচ্চ মূল্য।

কাজাখস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব বলছে, চলমান বিক্ষোভে কমপক্ষে ১৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে শুধু আলমাতি শহরেই নিহত হয়েছেন ১০৩ জন। এত দিন সরকারিভাবে বলা হচ্ছিল, সহিংসতায় ২৬ জন ‘সশস্ত্র সন্ত্রাসী’ ও নিরাপত্তা বাহিনীর ১৬ সদস্য নিহত হয়েছেন।

এদিকে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মোট ৫ হাজার ৮০০ জনকে আটক করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ‘উল্লেখযোগ্যসংখ্যক’ বিদেশি রয়েছেন। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়নি।

কাজাখস্তানে বিক্ষোভে সম্পদের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও আকাশছোঁয়া। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, গত কয়েক দিনের সহিংসতায় ১৯ কোটি ৯০ লাখ মার্কিন ডলারের সম্পদহানি হয়েছে। একই সময়ে শতাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ব্যাংকে হামলা-লুট হয়েছে। ভাঙচুর করা হয়েছে ৪০০টির বেশি গাড়ি।

এ মুহূর্তে প্রেসিডেন্ট কাশিম জোমার্ট তোকায়েভের অনুরোধে রাশিয়া ও প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে পাঠানো শান্তিরক্ষী বাহিনী কাজাখস্তানে অবস্থান করছে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য তারা অস্থায়ীভাবে কাজাখস্তানে অবস্থান করবে। রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন সিএসটিও নামের এই সামরিক জোট বাহিনীতে প্রায় আড়াই হাজার সেনা রয়েছেন। তবে এ সেনা অবস্থান নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন