বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের আফগানিস্তান শাখার (আইএস-কে) সন্দেহভাজন হামলাকারীদের ব্যবহৃত গাড়ি ও বাড়ি লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালানোর কথা প্রাথমিকভাবে জানিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু মার্কিন ড্রোন হামলায় বেসামরিক আফগান নাগরিক নিহত হওয়ায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে যুক্তরাষ্ট্র।

ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদনে মার্কিন বিমানবাহিনীর মহাপরিদর্শক লেফটেন্যান্ট জেনারেল সামি ডি সেইড বলেছেন, তদন্তে যুদ্ধসংক্রান্ত আইনসহ কোনো আইন লঙ্ঘনের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। নিশ্চিতকরণসহ নানা ভুলে দুঃখজনক এ ঘটনা ঘটেছে। সত্যিকার অর্থেই এটা ছিল ভুল। তবে এটা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড ছিল না।

জেনারেল সামি আরও বলেন, ড্রোন হামলায় জড়িত ব্যক্তিদের বিশ্বাস ছিল যে শিগগির একটি জঙ্গি হামলা হতে পারে। আর আসন্ন সেই জঙ্গি হামলা ঠেকাতেই তাঁরা ড্রোন হামলা চালান।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, কাবুলের হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যুক্তরাষ্ট্রের মিশনের জন্য হুমকি বিবেচনা করেই ওই ড্রোন হামলা চালানো হয়েছিল। কিন্তু ড্রোন হামলার চালানোর জন্য পাওয়া তথ্য ঠিক ছিল না। এ জন্য যুক্তরাষ্ট্র অনুতপ্ত।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন