default-image

উত্তর কোরিয়ায় বিরল এক দলীয় সম্মেলন হচ্ছে। এতে দেশটির নেতা কিম জং উনের বোন কিম ইয়ো-জং নেতৃত্ব পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পেতে পারেন বলে ধারণা করছেন পর্যবেক্ষকেরা। এই নারীকে নিয়ে অনেকেরই কৌতূহল। বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে তাঁর সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানানো হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ সংস্থা ইয়োনহাপ বলছে, উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন দলে ইয়ো-জং মন্ত্রীপর্যায়ের পদ পেতে পারেন।

বোনের ব্যাপারে কিম জং-উনের সম্ভাব্য এই পদক্ষেপকে দল ও দেশে তাঁর ক্ষমতা পোক্ত করার বিরাট পরিকল্পনার অংশ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

নর্থ কোরিয়ান লিডারশিপ ওয়াচের তথ্য অনুযায়ী, উত্তর কোরিয়ার প্রয়াত নেতা কিম জং-ইলের ছোট মেয়ে ইয়ো-জং। উত্তর কোরিয়ার বর্তমান নেতা কিম জং-উন ও কিম ইয়ো-জং আপন ভাই-বোন।


ইয়ো-জংয়ের জন্ম ১৯৮৭ সালে। তিনি তাঁর ভাই কিম জং-উনের খুবই ঘনিষ্ঠ বলে কথিত রয়েছে।


কিম জং-উন তাঁর বোন ইয়ো-জংয়ের চেয়ে চার বছরের বড়। দুই ভাই-বোন সুইজারল্যান্ডের বার্নে থেকেছেন, পড়ালেখা করেছেন।


ক্ষমতাসীন দলের ক্ষমতাধর সাধারণ সম্পাদক চোই রাইওয়াং-হের ছেলেকে ইয়ো জং বিয়ে করেছেন বলে বলা হচ্ছে।

default-image



ইয়ো-জংয়ের প্রধান কাজ তাঁর ভাইয়ের ভাবমূর্তি রক্ষা করা। তিনি ২০১৪ সালে দলের প্রচারণা বিভাগে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নেন।

কিম জং-উনের সব ধরনের প্রকাশ্য উপস্থিতির বিষয়টি দেখভাল করেন ইয়ো-জং। এর মধ্যে রয়েছে ভ্রমণের পরিকল্পনা, চলাচলে সার্বিক সহযোগিতা প্রভৃতি। এ ছাড়া তিনি রাজনৈতিক উপদেষ্টার দায়িত্বও পালন করেন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইয়ো-জংকে বিক্ষিপ্তভাবে প্রকাশ্যে দেখা যায়। ২০১১ সালে তাঁর বাবার রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্যে তাঁকে দেখা যায়। ২০১৪ সালে ভাইয়ের নির্বাচনের সময়ও তাঁকে দেখা যায়। এ ছাড়া তাঁকে প্রায় প্রায় রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমেও দেখা যায়।


ভালো কাজ করতে না পারায় দলের প্রচারণা বিভাগ থেকে ইয়ো-জংকে তাঁর ভাই বরখাস্ত করেন বলে গত বছরের অক্টোবরে গুজব রটে।


পর্যবেক্ষকদের ধারণা, ইয়ো-জংয়ের জন্য দলে একটি শীর্ষস্থানীয় পদ নির্ধারিত আছে।


কিম জং-উন তাঁর ঘাড়ত্যাঁড়া স্বভাবের জন্য পরিচিত। কিন্তু তাঁর বোন সম্পর্কে বলা হচ্ছে, তিনি মিষ্টি মেয়ে।


ইয়ো-জংয়ের মেজাজ-মর্জিও নাকি বেশ ভালো। তবে তাঁর মধ্যে কিছুটা টম বয়ের বৈশিষ্ট্য আছে।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন