প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়ার পরও জনরোষ থেকে রেহাই হয়নি মাহিন্দার। বিক্ষুব্ধ হাজারো মানুষ ঢুকে পড়েছিল তাঁর সরকারি বাসভবনে। একপর্যায়ে সামরিক বাহিনীর হেলিকপ্টারে করে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ভবন ছাড়েন তিনি।

রাজাপক্ষে পরিবারের আর কাউকে সরকারে দেখতে চান না বিক্ষোভকারীরা। তাঁরা প্রেসিডেন্ট পদ থেকে মাহিন্দার ছোট ভাই গোতাবায়া রাজাপক্ষের পদত্যাগের দাবি করছেন।

মাহিন্দা প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়ার পর যাতে সংসদ সদস্যরা দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন, সে জন্য বিক্ষোভকারীরা দেশটির আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রবেশমুখে অবস্থান নিয়েছেন।

নামাল একজন সংসদ সদস্য। তাঁকে রাজাপক্ষে পরিবারের ভবিষ্যৎ হিসেবে দেখা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচার ও দুর্নীতির অভিযোগ আছে। তবে তিনি এসব অভিযোগ অস্বীকার করছেন।

নামাল বলেন, ‘অনেক গুজব আছে যে আমরা দেশ ছেড়ে যাচ্ছি। আমরা দেশ ছাড়ব না।’ রাজাপক্ষে পরিবারের বিরুদ্ধে জাতীয় ক্ষোভকে একটি বাজে সময় হিসেবে বর্ণনা করেন নামাল।

নামাল জানান, তাঁর বাবা মাহিন্দা আইনপ্রণেতা হিসেবে পদত্যাগ করবেন না। তিনি তাঁর উত্তরসূরি নির্বাচনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে চান।

নামাল আরও বলেন, তাঁর বাবা বর্তমানে নিরাপদে আছেন। তিনি নিরাপদ স্থানে রয়েছেন। তিনি পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন