তবে নিষেধাজ্ঞা কবে থেকে ও কত দিনের জন্য কার্যকর হবে, তা স্পষ্ট করেননি তালেবান নেতারা। গত আগস্টে ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম তাঁরা দেশে কোনো অ্যাপ নিষিদ্ধ করলেন।

বিবিসির আফগান সার্ভিসের সম্পাদক হামিদ সুজা বলেছেন, আফগানিস্তানে বিনোদনের বিভিন্ন পথ বন্ধ থাকায় সাম্প্রতিক মাসগুলোতে তরুণ আফগানদের কাছে টিকটক ও পাবজি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

অনৈতিক অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে এমন টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সম্প্রচারও নিষিদ্ধ করা হবে বলে জানিয়েছে তালেবান।

দক্ষিণ কোরিয়ার তৈরি প্লেয়ার আননোনস ব্যাটলগ্রাউন্ডস (পিইউবিজি) নামের অনলাইন শুটিং গেমটি আফগানিস্তানের আগের সরকারও নিষিদ্ধ করার চেষ্টা করেছিল। তবে সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়।

আফগানিস্তানে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তরুণদের মধ্যে ইন্টারনেটের ব্যবহার ব্যাপকভাবে বেড়েছে। বর্তমানে দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় ৯০ লাখ।

দেশটির ৩ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মধ্যে দুই–তৃতীয়াংশের বয়স ২৫–এর নিচে।
গত বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের চারটি শহরে বোমা হামলার দিন অ্যাপের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে তালেবান সরকার। ওই বোমা হামলায় ৩১ জন নিহত ও ৮৭ জন আহত হন। আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএস এই হামলার দায় স্বীকার করেছে।

গত বছরের ১৫ আগস্ট পশ্চিমা-সমর্থিত আশরাফ গনি সরকারকে হটিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা গ্রহণ করে তালেবান। সরকার গঠনের পর দেশটিতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে উদার দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তারা। তবে তাদের বিরুদ্ধে নারীর স্বাধীনতা খর্ব করার অভিযোগ উঠেছে।

তালেবান তাদের কট্টরপন্থার জন্য পরিচিত। এর আগে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার সময় রাষ্ট্র পরিচালনায় কট্টর নীতি গ্রহণ করেছিল তারা।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন