বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রযুক্তি পণ্যটির উদ্ভাবক জাপানের মেইজি ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক হোমেই মিয়াশিতা বলেছেন, বর্তমান বিশ্ব করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত। এ সময় এ ধরনের প্রযুক্তি পণ্য বহির্বিশ্বের সঙ্গে মানুষের মিথস্ক্রিয়া ও যোগাযোগ বাড়ানোর উপায়কে আরও সুসংহত করবে।

ওই জাপানি অধ্যাপক আরও বলেছেন, মানুষ নিজ ঘরে বসে বিশ্বের অন্য প্রান্তের একটি রেস্তোরাঁর বিশেষ খাবার খাচ্ছেন, এমন অভিজ্ঞতা দেওয়ার জন্যই এই যন্ত্রটি তৈরির প্রধান লক্ষ্য।

বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তিযন্ত্র তৈরি করতে ৩০ জন শিক্ষার্থীর একটি দলের সঙ্গে কাজ করেছেন হোমেই মিয়াশিতা। তাঁরা বিভিন্ন ধরনের স্বাদ তৈরির যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন। এমনকি তাঁরা একটি কাঁটাচামচ তৈরি করেছেন, যেটা স্বাদ বাড়াতে পারে।

হোমেই মিয়াশিতা বলেছেন, কয়েক বছর ধরে চেষ্টার পর তিনি নিজে টিটিটিভি প্রোটোটাইপ যন্ত্রটি তৈরি করতে সক্ষম হন। এটা বিক্রির জন্য বাজারে তোলা হবে। বাণিজ্যিকভাবে প্রতিটি যন্ত্র তৈরিতে খরচ হবে প্রায় ৮৭৫ মার্কিন ডলার বা জাপানি মুদ্রা ১ লাখ ইয়েন।

হোমেই মিয়াশিতা তাঁর যন্ত্রটি ব্যবহার করার জন্য বিভিন্ন খাদ্যপণ্য তৈরিকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনাও করেছেন। পিৎজা, চকলেটসহ বিভিন্ন পণ্যের স্বাদ পরীক্ষার যন্ত্র হিসেবে এই প্রযুক্তি যন্ত্রটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

মেইজি ইউনিভার্সিটির ছাত্র ইউকি হু (২২) টিটিটিভি যন্ত্রের কার্যকারিতা নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি চকলেটের স্বাদ নিতে চেয়েছিলেন। কিছু সময় চেষ্টার পর তিনি মিল্ক চকলেটের মতো একধরনের স্বাদ পান। এটার স্বাদ মিষ্টি, চকলেট সসের মতো।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন