বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে সম্মেলনে চীনকে আমন্ত্রণ জানানো না হলেও তাইওয়ানকে জানানো হয়েছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বেইজিং। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেন, ‘তথাকথিত সম্মেলনে অংশ নিতে তাইওয়ানকে আমন্ত্রণ জানানোর বিরোধিতা করে চীন।’

আগামী ৯-১০ ডিসেম্বর এ ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনে মধ্যপ্রাচ্য থেকে ইসরায়েল ও ইরাককে রাখা হয়েছে। আরব বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র বলে পরিচিত মিসর, সৌদি আরব, জর্ডান, কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাত আমন্ত্রণ পায়নি। সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য তুরস্ককেও রাখা হয়নি।

অন্যদিকে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোর দেশও থাকছে এ সম্মেলনে। ইউরোপে মানবাধিকার নিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে ঝামেলায় থাকা পোল্যান্ড সম্মেলনে আমন্ত্রণ পেলেও হাঙ্গেরিকে রাখা হয়নি। আফ্রিকার দেশ কঙ্গো, দক্ষিণ আফ্রিকা, নাইজেরিয়া, নাইজার তালিকায় স্থান পেয়েছে।

গত আগস্টে এ সম্মেলনের ঘোষণা দেওয়ার সময় হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, কর্তৃত্ববাদের বিরুদ্ধে সুরক্ষা, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করা এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মান দেখানোর মতো তিনটি প্রধান বিষয়ে প্রতিশ্রুতি এবং উদ্যোগকে সম্মেলনে গুরুত্ব দেওয়া হবে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন