default-image

থাইল্যান্ডে রাজধানী ব্যাংককে রাজতন্ত্র ও রাজনৈতিক সংস্কারের দাবিতে এ বিরাট সমাবেশ হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতের সমাবেশ আজ রোববার শেষ হয়েছে। খবর বিবিসি ও ব্যাংকক পোস্টের।

এ সমাবেশে অন্তত ৫০ হাজার লোক উপস্থিত ছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মূলত তরুণেরাই এ সমাবেশের আয়োজক। এখানে অংশ নেওয়া প্রতিবাদকারীরা ‘সামন্ততন্ত্র নিপাত যাক, জনগণ দীর্ঘজীবী হোক’ বলে স্লোগান দেয়।

বিজ্ঞাপন

সমাবেশে ব্যাপক জনসমাগম হলেও কোনো সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি।

২০১৪ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে থাইল্যান্ডের ক্ষমতা দখল করেন তৎকালীন সেনাপ্রধান প্রায়ুথ চানওচা। এক বিতর্কিত নির্বাচনে জয় পেয়ে গত বছর থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হন তিনি। কিন্তু চলতি বছরের জুলাই থেকে শুরু হওয়া সরকারবিরোধী সমাবেশগুলো থেকে তাঁকে পদত্যাগের আহ্বান জানানো হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

গতকালের সমাবেশটি ব্যাংককের থাম্মাসাট বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে রাজকীয় অনুষ্ঠানাদির জন্য ব্যবহৃত গ্র্যান্ড প্যালেসের পার্শ্ববর্তী সানাম লুয়াংয় মাঠে সরিয়ে আনা হয়।

আজ সেই মাঠে রাজতন্ত্রের সংস্কারের দাবিতে একটি স্মারক স্থাপন করে বিক্ষোভকারীরা। সেখানে লেখা আছে, ‘থাইল্যান্ড এ দেশের জনগণের’।

বিজ্ঞাপন

সমাবেশে ছাত্র নেতা প্রায়িত পেঙ্গুইন চিবারক উপস্থিত জনতাকে বলেন, ‘আমি আশা করছি ক্ষমতায় থাকা লোকজন জনতার গুরুত্ব টের পাবে। আমরা রাজতন্ত্রকে সঠিক পথে আনার জন্য লড়াই করছি, একে বিলুপ্ত করার জন্য নয়। গত দুই দিনের বিক্ষোভে আমরা রাজতন্ত্রের কাছে এই বার্তা দিতে পেরেছি।’

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্র সংস্কারের আহ্বান জানানো অত্যন্ত সংবেদনশীল বিষয়। দেশটিতে রাজতন্ত্রের সমালোচকদের দীর্ঘমেয়াদে কারাভোগ করতে হয়।

মন্তব্য পড়ুন 0