বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

করোনা মহামারি শুরুর পর বাকি বিশ্ব থেকে নিজেদের বিচ্ছিন্ন করেছে উত্তর কোরিয়া। দেশটির অর্থনীতির ওপর এর ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। এ ছাড়া খাদ্য মজুত করতেও দেশটিকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

উত্তর কোরিয়ার বার্তা সংস্থা কেসিএনএর খবরে বলা হয়েছে, মানুষের দৈনন্দিন চাহিদা পূরণের বিষয়টিকে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার খাদ্যসংকট নিয়ে এর আগেও সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। জাতিসংঘের পক্ষ থেকে গত অক্টোবরে বলা হয়েছিল, দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে রয়েছে দেশটি।

এ প্রসঙ্গে কিম বলেন, করোনার ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার জন্য যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হবে, সেগুলো সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। জোরেশোরে পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার নাম সরাসরি না নিলেও সামরিক সক্ষমতা নিয়ে কথা বলেন কিম। তিনি বলেন, চলতি বছরও সামরিক সক্ষমতা বাড়াতে কাজ চালিয়ে যাবে পিয়ংইয়ং। কোরীয় উপদ্বীপ ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সামরিক অস্থিরতার কারণে এ পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন