বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পলাতক ছয় বন্দীর মধ্যে ছিলেন মাহমুদ আরদাহ, মুনাদিল ইনফাত, মোহাম্মদ আরদাহ, ইহাম কামামজি, ইয়াকুব কাদরি ও জাকারিয়া জুবেইদি। তাঁদের মধ্যে জাকারিয়া জুবেইদি আল-আকসা মার্টায়ার্স ব্রিগেডসের সাবেক প্রধান। একাধিক সন্ত্রাসী হামলা চালানোর অভিযোগে ২০১৯ সালে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। বাকি চারজনকে ইসরায়েলিদের হত্যার দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হয়েছিল।

কারাগার থেকে পালানোর এই ঘটনাকে কর্মকর্তাদের ব্যর্থতা বলে উল্লেখ করেছে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে এই জেল পালানোর ঘটনাকে ‘নায়কোচিত’ বলে আখ্যায়িত করেছে ফিলিস্তিনের বিভিন্ন বিদ্রোহী দল।

কারাগার চত্বরে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ অনুযায়ী, রোববার দিবাগত রাত দেড়টায় সুড়ঙ্গ খুঁড়ে কারাগার থেকে পালিয়ে যান ছয় বন্দী। কিন্তু বিষয়টি তখন নজরে আসেনি। রাত তিনটায় গিলবোয়া কারাগারের কাছে সন্দেহভাজন কয়েক ব্যক্তিকে দেখতে পান স্থানীয় লোকজন। তাঁরা বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানান। এরপর ভোররাত চারটায় সতর্কতা অ্যালার্ম বাজানো হয়।

গত দুই দশকের মধ্যে এই প্রথম ইসরায়েলের কোনো কারাগার থেকে ফিলিস্তিনি বন্দীদের পালানোর মতো বড় ঘটনা ঘটল। এটিকে কারাগারের নিরাপত্তাব্যবস্থার ব্যর্থতা বলছে ইসরায়েলের গণমাধ্যম। এমনকি, যে সুড়ঙ্গ ব্যবহার করে বন্দীরা পালিয়েছেন, সেটির কাছের একটি পর্যবেক্ষণ টাওয়ারে থাকা নিরাপত্তারক্ষী ঘুমিয়ে পড়েছিলেন বলে শোনা যাচ্ছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন