default-image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে রাজ্যের বিভিন্ন পৌর করপোরেশন ও পৌরসভার প্রশাসকদের তাঁদের পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতির নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। নির্দেশনায় ওই পদে কোনো সরকারি কর্মকর্তাকে নিয়োগ করতে বলা হয়। গতকাল শনিবার রাজ্যের মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনায় বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য বিধানসভার নির্বাচনকে অবাধ, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ করতে জাতীয় নির্বাচন কমিশন এ পদক্ষেপ নিয়েছে। রাজ্যের মুখ্য সচিবকে আগামীকাল সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে এ বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানাতে বলা হয়।

বিজ্ঞাপন

জাতীয় নির্বাচন কমিশনের এই পদক্ষেপের পরিপ্রেক্ষিতে এবার কলকাতা পৌরসভার সাবেক মেয়র ও বর্তমান প্রশাসক ফিরহাদ হাকিমকে পৌর প্রশাসকের পদ ছাড়তে হবে। পদ ছাড়তে হবে বিধাননগর পৌরসভার পৌর প্রশাসক কৃষ্ণা চক্রবর্তীকেও। নির্দেশনা অনুযায়ী বিধানসভা নির্বাচনের আগপর্যন্ত তাঁরা নিজেদের পদে বসতে পারবেন না।

এই রাজ্যের ১৩৫টি পৌরসভা ও পৌর করপোরেশনের মধ্যে ১২৫টির মেয়াদ গত এপ্রিল-মে মাসে শেষ হয়। কিন্তু করোনার কারণে ওই সময় সেসব পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। যার ফলে ওই সব পৌর করপোরেশন এবং পৌরসভার চেয়ারম্যানদের চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে তাঁদের সংশ্লিষ্ট পৌর করপোরেশন ও পৌরসভার প্রশাসক পদে নিয়োগ করে রাজ্য প্রশাসন।

নির্বাচন এগিয়ে আসায় দাবি ওঠে আসন্ন নির্বাচনে পৌর প্রশসকেরা নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবেন না। তাঁরা যেসব দল থেকে এসেছেন, কার্যত তাঁদের পক্ষেই কাজ করবেন। এতে বিধানসভা নির্বাচনে নিরপেক্ষতা থাকবে না। এ নিয়ে ৪ মার্চ বিজেপির একটি প্রতিনিধিদল দিল্লিতে নির্বাচন কমিশন দপ্তরে গিয়ে তাঁদের সরানোর দাবি তোলে।

এরপর এ সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। গতকাল শনিবার এক বিজ্ঞপ্তি নির্বাচন কমিশন থেকে বলা হয়, বিধানসভা নির্বাচনের কোনো প্রার্থী অথবা রাজনৈতিক ব্যক্তি আর পৌর প্রশাসক পদে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। কারণ, এতে করে বিশ্বাসযোগ্যতা ও নিরপেক্ষতা খর্ব হতে পারে। তাই নির্বাচন কমিশন এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে রাজ্যের মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে নির্দেশ দিয়েছে। বলেছে, নতুন প্রশাসক নিয়োগ করে তা ২২ মার্চ সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন